বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা চর্চা বিভাগের প্রাক্তন উপ-পরিচালক মোঃ আফজালুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা চর্চা বিভাগের প্রাক্তন উপ-পরিচালক মোঃ আফজালুর রহমান আজ সকাল সোয়া ১১ টায় খুলনা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্না…রাজিউন)। তিনি বেশকিছুদিন যাবত দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো প্রায় ৬৭ বছর।

খুবির শারীরিক শিক্ষা চর্চা বিভাগের প্রাক্তন উপ-পরিচালক
আফজালুর রহমানের মৃত্যুতে উপাচার্যের শোক

মৃত্যুকালে তিনি এক পুত্র ও দুই কন্যাসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন, সহকর্মী ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। রূপসা উপজেলার নৈহাটি গ্রামে প্রথম জানাজা, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদে আসর বাদ দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত নামাজে জানাজায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, রেজিস্ট্রারসহ শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্র বিপুল সংখ্যক মুসল্লী শরীক হন। পরে খুলনা স্টেডিয়ামে তৃতীয় জানাজা শেষে তাঁকে নগরীর টুটপাড়া কবরস্থানে বাদ মাগরিব দাফন করা হবে। 


খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা চর্চা বিভাগের প্রাক্তন উপ-পরিচালক মোঃ আফজালুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক শোকবার্তায় তিনি মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।

অনুরূপভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর সাধন রঞ্জন ঘোষ, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, শারীরিক শিক্ষা চর্চা বিভাগের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মোল্যা মোহাম্মদ শফিকুর রহমানসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ শোক প্রকাশ করেছেন। এছাড়া অপর এক পৃথক বিবৃতিতে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স কল্যাণ পরিষদের সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ তারিকুজ্জামান লিপন অনুরূপভাবে শোক প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, তিনি ১৯৯৫ সালের ২৯ জুন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষা বিভাগে ফিজিক্যাল ইনেস্ট্রাকটর পদে যোগদান করেন এবং পরবর্তীতে সহকারী পরিচালক ও উপ-পরিচালক পদে যোগদান করেন। ২০১৫ সালের ৩০ জুন অবসর গ্রহণ করেন। তিনি খুলনা জেলার রূপসা উপজেলার নৈহাটি গ্রামে ১৯৫৩ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। আফজালুর রহমান ইয়ং বয়েজ ক্লাব, সোনালী অতীত ক্লাব ছাড়াও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও পরিচিতি লাভ করেন।

0 replies

Leave a Reply

Want to join the discussion?
Feel free to contribute!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *