এইচএসসি পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৭১ দশমিক ৮৫ শতাংশ ও জিপিএ–৫ বেড়েছে

২০১৯ সালে আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে শুধু এইচএসসি পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৭১ দশমিক ৮৫ শতাংশ। এর মধ্যে ফলের সর্বোচ্চ সূচক জিপিএ ৫ পেয়েছেন ৪১ হাজার ৮০৭ জন। অর্থাৎ, ১০ বোর্ডে যতজন জিপিএ–৫ পেয়েছেন, এর বেশির ভ।গই এইচএসসি পরীক্ষার্থী।

ফলাফল জানার লিঙ্ক 

মাদ্রাসা ও কারিগরি মিলিয়ে এবার মোট জিপিএ–৫ পেয়েছেন ৪৭ হাজার ২৮৬ জন।

আজ সকাল ১০টায় গণভবনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ও সব বোর্ডের চেয়ারম্যানরা নিজ নিজ বোর্ডের ফলাফল প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেন। এ সময় শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ফলাফল সম্পৃক্ত কিছু তথ্য তুলে ধরেন।

গতবার আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে গড় পাসের হার ছিল ৬৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। এইচএসসিতে জিপিএ–৫ পেয়েছিলেন ২৫ হাজার ৫৬২ জন।  এবার এইচএসসিতে পাসের হার ও জিপিএ–৫ দুটোই বেড়েছে।

অন্যদিকে, এবার মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে আলিম পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮৮ দশমিক ৫৬ শতাংশ এবং জিপিএ–৫ পেয়েছেন ২ হাজার ২৪৩ জন। কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি (বিএম) পরীক্ষায় গড় পাসের হার ৮২ দশমিক ৬২ শতাংশ এবং জিপিএ৫ পেয়েছেন ৩ হাজার ২৩৬ জন।

এবার আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি বোর্ড মিলিয়ে ১০টি বোর্ডের অধীনে মোট পরীক্ষার্থী ছিলেন ১৩ লাখ ৩৬ হাজার ৬২৯ জন। এর মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছেন ৯ লাখ ৮৮ হাজার ১৭২ জন।

দুপুর সাড়ে ১২টায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত ফলাফল প্রকাশ করবে। আর পরীক্ষাকেন্দ্রগুলোতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অনলাইনে একযোগে ফল প্রকাশ করা হবে বেলা একটায়।

গত ১ এপ্রিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়েছিল।

সংসদ ভোটে নির্বাচিত হয়নি, ভেঙ্গে দিয়ে নির্বাচন চাই — রুমিন ফারহানা

যেকোনো রাজনীতিবিদের জন্যে সংসদে যাওয়া, সংসদে বসে দেশের কথা, দেশের মানুষের কথা বলা একটি স্বপ্ন। সুতরাং আজকে প্রথমবারের মতো সংসদে যাওয়া সেই স্বপ্নের পূরণ। এটি আমার জন্যে একটি আনন্দের দিন। কিন্তু, একই সঙ্গে এই দিনটি আমার জন্যে অত্যন্ত লজ্জার এবং কষ্টের।

“লজ্জার এবং কষ্টের এ কারণে যে আমি এমন একটি সংসদে প্রতিনিধিত্ব করছি যে সংসদটি জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। এই সংসদের সঙ্গে বাংলাদেশের জনগণের কোনো সম্পর্ক নেই। আমি খুশি হবো যদি আমার সাংসদ হওয়ার মেয়াদ আর একদিনও না বাড়ে। এবং সংসদটি ভেঙ্গে দিয়ে অতি দ্রুত একটি নির্বাচন দেওয়া হয়। যে নির্বাচনটি হবে জনগণের, অংশগ্রহণমূলক, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ।”

রোববার, জুন ৯, শপথ নেওয়ার পর সাংবাদিকদের বললেন একাদশ জাতীয় সংসদের ৩৫০ নং সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) বিএনপি নেত্রী রুমিন ফারহানা।

রুমিন ফারহানা বিএনপির আন্তর্জাতিকবিষয়ক সহ-সম্পাদক ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এবং প্রয়াত ভাষা সৈনিক অলি আহাদের মেয়ে।

নারী নির্যাতনে নির্মূল করা তো দূরে থাক, অনেক সময় সরকারকে উসকানি দিতে দেখেছি : রুহুল কবির রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেছেন,নারী নির্যাতনে নির্মূল করা তো দূরে থাক, আমরা অনেক সময় সরকারকে উসকানি দিতে দেখেছি।

নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শনিবার সকালে মানববন্ধনে রুহুল কবির রিজভী এ কথা বলেন ।

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে চলন্ত বাসে নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়াকে গণধর্ষণ ও হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির দাবিতে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল এ মানববন্ধনের আয়োজন করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রিজভী আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও স্পিকার নারী। অথচ কী দুর্ভাগ্যের বিষয়- পাইকারি হারে নারী নির্যাতন চলছে। যখন থেকে তারা ক্ষমতায় এসেছেন তখন থেকে তারা এটা করছে। আর নারী নির্যাতন নির্মূল করার দায়িত্ব সরকারের। কিন্তু নির্মূল করা তো দূরে থাক, আমরা অনেক সময় উসকানি দিতে দেখেছি।

নারী ও শিশু নির্যাতনের বিষয়ে তিনি বলেন, যারা এ কাজগুলো করছে, তারা অধিকাংশ ক্ষমতাসীন দলের লোক। আর ক্ষমতাসীন দলের লোক বলেই তারা পার পেয়ে যাচ্ছে। তারা সরকারের আনুকূল্য পাচ্ছে। আর আনুকূল্য পাচ্ছে বলেই এ সামাজিক অপরাধ সরকার ঠেকাতে পারছে না।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন আহমেদের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে রিজভী আহমেদ বলেন, আজ সালাউদ্দিন আহমেদের গুম দিবস। আজকে তিনি ভারতে কেনো? কারণ তিনি মেধাবী ছাত্র ছিলেন। পরে তিনি রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন, মন্ত্রী হয়েছেন এবং কয়েকবার এমপিও ছিলেন। কিন্তু এক অন্ধকারের মৃত্যুকূপের মধ্যে তাকে ফেলে রাখা হয়েছে। আজ সেখানে তিনি এক মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। এখন তার নামই হয়ে গেছে গুম সালাউদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘গত আড়াই হাজার বছরের মধ্যে মতপ্রকাশের স্বাধীনতার জন্য একজন জীবন দিয়েছিলেন। তিনি হলেন, গ্রিক দার্শনিক সক্রেটিস। তিনি তার কথা ও সত্য উচ্চারণ থেকে দ্বিধান্বিত হননি। আর আড়াই হাজার বছর পরে আরেক জন, তিনি হলেন-বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তিনি মতপ্রকাশের স্বাধীনতার জন্য কারাগারে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দিন পার করছেন। এরপরও তার মাথাকে নত করা যায়নি।

যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর মামলার বিষয়ে রিজভী আহমেদ বলেন, সব মামলায় টুকুর জামিন হয়ে গেছে। এরপরও টুকুর মুক্তি ও নিস্তার নেই। কারণ মুক্তি পেলেই তিনি সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলবে। তাই আবারও তার বিরুদ্ধে দুটি মামলা দিয়ে তাকে কারাগারে রাখা হয়েছে।

আজকে ক্ষমতাসীনরা গণতন্ত্রকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে বলেও মন্তব্য করেন রুহুল কবির রিজভী।

মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে ও মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন সংগঠনটির নেত্রী জেবা খান, হেলেন জেরিন খান প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিল বের করে মহিলা দল।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি’র নির্বাচিতদের শপথ নেয়ার বিষয়ে দলের অবস্থান ব্যাখ্যা

দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা, মুক্তি এবং গণতন্ত্র পুনুরুদ্ধারের সংগ্রামের অংশ হিসাবে সংসদে অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে : মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র মহাসচিব
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জাতীয় রাজনীতির এই সংকটময় জটিল প্রেক্ষিতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা, মুক্তি এবং গণতন্ত্র পুনুরুদ্ধারের সংগ্রামের অংশ হিসাবে আমাদের দল সংসদে অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আজ ২৯ এপ্রিল ২০১৯,সোমবার, বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির এই সিদ্ধান্তের কথা জানান বিএনপি মহাসচিব ।

সংবাদ সম্মেলনে পঠিত লিখিত বক্তব্য-

“ বাংলাদেশের নির্বাচনে ইতিহাসে গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন ছিল একটি কলঙ্কজনক প্রহসনের নির্বাচন। যা ইতোমধ্যেই আন্তর্জাতিক মহলও প্রহসনের নির্বাচন হিসাবে চিহ্নত করেছে। এই নির্বাচনের ফলাফল ছিল সম্পূর্ণ সাজানো এবং দেশের দল মত নির্বিশেষে সকল ভোটারাই এই নির্বাচনে তাদের ভোটাধিকার থেকে জোর পূর্বক বঞ্ছিত হয়েছেন। যা ক্ষমতাসীন মহলের কারো কারো মুখ থেকেও স্বীকার উক্তি হিসাবে বেরিয়ে এসেছে।

নজীরবিহীন সন্ত্রাস, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ সর্বপরি নির্বাচন কমিশনের পক্ষপাতিত্বের মাধ্যমে ভোটের দিনের আগের রাতেই ভোটের ফলাফল একতরফা ভাবেই তাদের পক্ষে সাজিয়েছে সরকার। আমরা সংগত কারণেই ভোটাধিকার বঞ্ছিত জনগণের ক্ষোভের ধারাবাহিকতায় এই নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছিলাম এবং জাতীয় সংসদে আমাদের মনোনীত বিজয়ী প্রার্থীদের শপথ গ্রহণ না করার জন্য আহŸান করেছিলাম।

আমাদের দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি একটি উদারপন্থী গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। আমরা বিশ^াস করি নির্বাচনই ক্ষমতা পরিবর্তনের একমাত্র পথ। কিন্তু ক্ষমতাসীন মহল নির্বাচনী ব্যবস্থাকে আজ এমনভাবে দলীয় করণ করেছে যে, গোটা নির্বাচনী প্রতিষ্ঠান আজ ক্ষমতাসীনদের ক্ষমতা প্রলম্বিত করার একটি হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চার অন্য সকল পদ্ধতিও সংকীর্ণ হয়ে গিয়েছে। বিশ^বাসীর কাছে এই সরকার তার গ্রহণযোগ্যতার জন্য ভোটারবিহীন এই সংসদকে সচল দেখাতে চায়। এইটুকুই কেবল আজ গণতান্ত্রিক অধিকার চর্চার নুন্যতম সুযোগ হিসাবে বিরোধী জনমতের জন্য অবশিষ্ট আছে।

আমরা বরাবরের মতই দাবী করছি, দল নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে পুনরায় নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের ভোটে জনগণের সংসদ নির্বাচন করাই এই সংকট সমাধান করার একমাত্র পথ। তাই একদিকে নতুন নির্বাচনের দাবি ও দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দীদের মুক্তি এবং মামলা প্রত্যাহারের অব্যাহত দাবি অন্যদিকে দেশের চলমান অর্থনৈতিক, আইন-শৃংখলা ও সামাজিক চরম সংকট যথাক্রমে রাষ্ট্রীয় দুর্নীতি, শেয়ার বাজার কেলেংকারী, ব্যাংক লুট, নারী নির্যাতন, গুম-খুন, গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণ-এর বিরুদ্ধে একটি কার্যকরী ও জোরালো গণআন্দোলন গড়ে তোলার জন্য আমাদেরকে নতুনভাবে উদ্দীপ্ত হতে হবে ।

ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং দেশনেত্রীর মুক্তির দাবিতে সংসদে কথা বলার সীমিত সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সংসদ ও রাজপথের সংগ্রামকে যুগপৎভাবে চালিয়ে যাওয়াকে আমরা যুক্তিযুক্ত মনে করছি। জাতীয় রাজনীতির এই সংকটময় জটিল প্রেক্ষিতে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা, মুক্তি এবং গণতন্ত্র পুনুরুদ্ধারের সংগ্রামের অংশ হিসাবে আমাদের দল সংসদে অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আশা করি দেশবাসীকে সাথে নিয়ে আমাদের এই সিদ্ধান্তের ধারাবাহিকতায় অবিলম্বে একটি অবাধ জাতীয় নির্বাচন আদায় করে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও দেশনেত্রীসহ সকল রাজবন্দীকে মুক্ত করে আমরা আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ঘোষিত জাতীয় ঐক্যমতের বাংলাদেশ গড়ে তুলব।”

পরিকল্পিতভাবে গণতন্ত্রকে হত্যা করছে সরকার — মির্জা ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার চক্রান্ত করে সুপরিকল্পিত ভাবে গণতান্ত্রিক সকল প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংসের মাধ্যমে গণতন্ত্রকে গলা টিপে হত্যা করেছে।

সোমবার, এপ্রিল ২২, জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক ও বর্তমান ছাত্রফোরাম আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ছাত্ররা বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে দেশের জন্য ভূমিকা রেখে এসেছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার জন্য জনগণকে সম্পৃক্ত করে গনআন্দোলন করতে হবে। সেই আন্দোলনেও সারাদেশের ছাত্রদের একত্রিত করে ছাত্রদলকে ভূমিকা রাখতে হবে।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাবেক আহ্বায়ক আব্দুল খালেক হাওলাদারের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আসাদুজ্জামান রিপন, ডাকসুর সাবেক ভিপি ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, ডাকসুর সাবেক জিএস ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, সেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভুইয়া জুয়েল, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মজনু, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন প্রমুখ।

বিএনপি মহাসচিব শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহতদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বলেন, আমরা সবসময় সকল ধরনের সন্ত্রাসী হামলার বিপক্ষে। আমরা এ ধরনের সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এধরণের সন্ত্রাসী হামলা বিরুদ্ধে সারা বিশ্বে আন্দোলন গড়ে তোলারও আহ্বান জানান তিনি।

বিএনপির নির্বাচিতদের শপথ নেওয়ার প্রচারণা ভিত্তিহীন: মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানিয়েছেন চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তির বিনিময়ে বিএনপি থেকে একাদশ সংসদ নির্বাচনে ঘোষিত নির্বাচিতরা শপথগ্রহণ করবেন বলে যে প্রচারণা চালানো হচ্ছে তা অসত্য ও ভিত্তিহীন।

শনিবার (২০ এপ্রিল) কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল হক চৌধুরীর বাড়িতে একাদশ সংসদ নির্বাচনের সময় নির্যাতিত বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের আগে গণমাধ্যমকে তিনি একথা জানান।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জ কারাগারে পাঠানোর অর্থ হলো পরিকল্পিতভাবে তাকে ক্ষতিগ্রস্ত করার চেষ্টা করা। সরকার ইচ্ছা করে বেগম খালেদা জিয়ার জামিন বিলম্বিত করছে। যার কারণে তিনি ১৪ মাস ধরে কারাগারে। সরকার দলীয় অনেকে সাজাপ্রাপ্ত হয়েও মুক্ত এবং মন্ত্রিত্ব করছেন।’

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবাইদা রহমানের তিনটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দের বিষয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এক দেশের আদালত আরেক দেশের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বন্ধের নির্দেশনা দিলে তা বন্ধ হয় কিনা আমার জানা নেই।’

এর আগে কুমিল্লার বুড়িচংয়ে এক পথসভায় মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা যে চিন্তাভাবনা নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করেছি, আওয়ামী লীগ সেই চেতনা ধ্বংস করে দিয়েছে। তারা গণতন্ত্রকে শেষ করে দিয়েছে। মানুষের অধিকারকে হরণ করেছে। আজকে তারা পিস্তল, বন্দুকের জোরে এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে ক্ষমতা ধরে রাখতে চায়।’

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন– সাবেক সংসদ সদস্য মনিরুল হক চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদ, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কবির মুরাদ, মনিরুল হক চৌধুরীর মেয়ে ড. সায়মা ফেরদৌস।

 

খালেদার চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছে সরকার — রুহুল কবির রিজভী

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার নামে সরকার প্রতারণা করছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। সোমবার দুপুরে রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে ঝটিকা মিছিল পূর্বক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা এখন চরম পর্যায়ে উপনীত হয়েছে। তাকে চিকিৎসা দেয়ার নামে সরকার প্রতারণা করে যাচ্ছে। দেশনেত্রীর পছন্দের হাসপাতালে চিকিৎসার সুযোগ না দিয়ে বরং যেখানে উন্নত চিকিৎসা দূরের কথা চিকিৎসার আধুনিক সরঞ্জামাদিও নেই সেই হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার নামে জনগণকে বারবার ধোকা দিচ্ছে।

তিনি বলেন, এটি বেগম জিয়ার জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলারই সামিল। এই খেলা বন্ধ করে অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে তার পছন্দের হাসপাতালে সুচিকিৎসার সুযোগসহ নিঃশর্ত মুক্তির আবারও জোর দাবি জানাই।

বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক মুহাম্মদ মুনির হোসেন স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আজ দুপুর দেড়টায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মীর অংশগ্রহণে রাজধানীর বাডাস্থ সুবাস্ত টাওয়ারের সামনে থেকে উত্তর বাড্ডার ফুজি টাওয়ার পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

গুম-খুনের সঙ্গে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের লোকজনও জড়িত — রুহুল কবির রিজভী

গুম-খুনের সঙ্গে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের লোকজনও জড়িত বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রয়ী কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকার গত এক দশকের বেশী সময় ধরে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে। শেখ হাসিনার চোখে চিরকালীন প্রধানমন্ত্রী থাকার স্বপ্ন। ক্ষমতার পৌষ মাস যাতে কোনদিনই শেষ না হয়, সেই নীতি অবলম্বন করেই দেশ চালাচ্ছেন তিনি। আর সেজন্য নিজেদের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিরোধীদল ও মতকে দমন করতে এমন কোন বর্বর ও নির্দয় পন্থা নেই, যা করছেন না। আইনশঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোন সংগঠন প্রকাশ্যে কিংবা তাদের গোপন সংস্থাগুলোর মাধ্যমে এই গুম-খুন করা হচ্ছে। এই গুম-খুনের সঙ্গে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের লোকজনও জড়িত বলে তথ্য-প্রমাণসহ বিদেশী সংবাদ মাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, নিজেদের ব্যবসায়িক কারণেও গুম করা হচ্ছে মানুষকে। কোন মানুষেরই জীবনের নিরাপত্তা নেই। ঘর থেকে বেরুলে তিনি আবার ঘরে ফিরতে পারবেন কি না তার কোন গ্যারান্টি নেই। কারন সরকারের গোপন সংস্থার লোকজন ওৎ পেতে আছে। খবরের কাগজ খুললেই গুম অত:পর ক্রসফায়ার বা বেওয়ারিশ লাশের খবর। সেন্সরশীপের পরেও প্রায় প্রতিদিনই গণমাধ্যমে আসছে। আর এসব খবরে সারাজাতি আতঙ্কিত ও স্তম্ভিত।

রিজভী বলেন, বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরার ইনভেষ্টিগেটিভ ইউনিট এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তা উপদেষ্টার বিরুদ্ধে তিনজনকে গুম করার অভিযোগ উঠেছে। প্রচ্ছায়া লিমিটেডের ৩ কর্মচারীকে আইনের অপব্যবহার করে তুলে নিয়ে গুম করা হয়েছে। সম্প্রতি এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর বাংলাদেশে আলজাজিরা ব্লক করে দিয়েছে সরকার। বাংলাদেশ থেকে এখন আর তাদের ওয়েব সাইটটিতে প্রবেশ করা যাচ্ছে না। এর মাধ্যমে সরকার আবারও প্রামণ করলো সত্যকে গলা টিপে রাখতে চায় তারা। বাকশাল পুণ:প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে গণমাধ্যমকে হত্যা করছে তারা। শুধুমাত্র সত্য প্রকাশের কারণে চ্যানেল ওয়ান, দিগন্ত টিভি, ইসলামী টিভি, পিস টিভি বন্ধ করে দিয়েছে। ‘আমার দেশ’সহ বহু প্রিন্ট মিডিয়া বন্ধ করা হয়েছে। স্বৈরাচার দীর্ঘায়িত হলে নাৎসীবাদের উত্তরণ ঘটে। এ সরকারও নাৎসীবাদের উপাসক। ক্ষমতাসীনরাই যদি নিজেদের স্বার্থের কারণে মানুষকে অদৃশ্য করে তাহলে মনুষ্যত্বহীনতার এই ভয়ঙ্কর মূর্তি দেখে সাধারণ মানুষ কি বেঁচে থাকার কোন রাস্তা খুঁজে পাবে ? ক্ষমতাশালী ব্যক্তিরাই যদি সহজাত বিচার-বুদ্ধি হারিয়ে গুম-খুনের সওদাগরীতে মেতে থাকে তাহলে মানবাধিকারের আর্তনাদ ছাড়া আর কিছুই শোনা যাবে না-যা সভ্য সমাজে অনভিপ্রেত।

বিএনপির এই নেতা বলেন, বিরোধী দলবিহীন একতরফা নির্বাচন, মিডনাইট নির্বাচন ইত্যাদির সাফল্যে আত্মহারা হওয়ার জন্যই শেখ হাসিনার নিরাপত্তা উপদেষ্টার মতোই ক্ষমতাশালী ব্যক্তিদের মাথায় আঁধার নেমেছে। আর এজন্যই তারা গুম-খুনের খেলায় বেপরোয়া ভাব দেখাচ্ছে। অবৈধ ক্ষমতার অহঙ্কার মানুষকে বিবেকশুন্য করে তোলে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া, নজমুল হক নান্নু, প্রশিক্ষণ সম্পাদক এবিএম মোশাররফ হোসেন, সহ দপ্তর সম্পাদক মুনির হোসেন প্রমুখ।

রাজধানীর নর্দ্দায় সুপ্রভাত বাসের চাপায় এক শিক্ষার্থী নিহতে ঘটনায় আন্দোলনে রাজপথে সহপাঠিরা

রাজধানীর নর্দ্দায় সুপ্রভাত বাসের চাপায় এক শিক্ষার্থী নিহতে ঘটনায় আন্দোলনে রাজপথে সহপাঠিরা আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।

তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছে ইনডিপেনডেন্ট, নর্থ সাউথ, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি সহ আশেপাশের শিক্ষার্থীরা। এই অবস্থায় তাদের ফাঁসাতে ভিন্ন কৌশল নেয়া হয়। এক পরিবহন শ্রমিক নিজেই বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে শিক্ষার্থীরা ওই আগুন নেভানোর চেষ্টা চালায়!

জানা যায়, আন্দোলন চলাকালে দুপুর সাড়ে ১২টার দিক সুপ্রভাত বাসেরই এক হেলপার হঠাৎ করে এসে বাসে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এতে শিক্ষার্থীরা হতবিহ্বল হয়ে পড়েন। এ নিয়ে ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। পরে শ্রমিকের আগুন লাগানোর বিষয়টি ধরা পড়লে ভুল বোঝাবুঝির অবসান হয়।

এদিকে বাসে আগুন দেয়া ওই শ্রমিককে ধরতে গেলে সে কৌশলে পালিয়ে যায়। এ সময় শিক্ষার্থী পানি এনে বাসের আগুন নেভানোর চেষ্টা করে!

যমুনা ফিউচার পার্ক এর সামনে সুপ্রভাত বাসের চাপায় #BUP ছাত্র নিহত

রাজধানীতে ‘ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহ’ চলার মধ্যেই নর্দ্দা এলাকায় বাসের চাপায় এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন।আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে সাতটার দিকে যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে সুপ্রভাত পরিবহন নামের বাসের চাপায় ওই শিক্ষার্থী নিহত হন। এ ঘটনায় বাসচালককে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, নিহত শিক্ষার্থীর নাম আবরার আহমেদ চৌধুরী (২০)। তাঁর বাবা আরিফ আহমেদ চৌধুরী।

আবরার বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী ছিলেন।

দুর্ঘটনার পর যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের রাস্তা অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী। তাঁরা ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ী ব্যক্তিদের বিচার দাবিতে স্লোগান দিচ্ছিলেন।অবরোধের কারণে সড়কের দুপাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বিইউপির একটি বাস সকালে যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে দাঁড়িয়ে ছিল। সকাল সাড়ে সাতটার দিকে আবরার বাসে উঠতে যাচ্ছিলেন। এ সময় পাশে থাকা গাজীপুরগামী সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাস তাঁকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। পরে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন।

গুলশান থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আলম এই তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত বলেন, বাসের চালক সিরাজুল ইসলামকে আটক করা হয়েছে।