৪১তম বিসিএস প্রস্তুতিঃ ‌বিসিএস প্রিলিমিনারী পরীক্ষার গুরুত্বপূর্ণ বইসমূহঃ

৪১তম বিসিএস প্রস্তুতিঃ ‌বিসিএস প্রিলিমিনারী পরীক্ষার গুরুত্বপূর্ণ বইসমূহঃ
[এই বই কেউ ভাল করে ব্যাখ্যাসহ পড়লে(আবার বলি ভাল করে পড়তে হবে) অবশ্যই প্রিলিমিনারী পরীক্ষায় পাশ করবেন]
®® বাংলা ভাষা ও সাহিত্যঃ
১) বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাসা – ড. সৌমিত্র শেখর
২) বাংলা ব্যাকরণ – ৯ম ও ১০ম শ্রেণি
৩) প্রফেসরস্ প্রিলিমিনারী বাংলা

®® English
১) English for Competitive Exams – Md. Fazlul Haque
২) An ABC of English Literature- Dr. M. Mofizur Rahman

®® গণিত ও মানসিক দক্ষতাঃ
১) MP3 গণিত
২) Oracle মানসিক দক্ষতা।

®® বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলিঃ
১) MP3-বাংলাদেশ বিষয়াবলি ও MP3 আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি

২) প্রতি মাসের কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স

®® বিজ্ঞান, ভূগোল, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিঃ
১) MP3 বিজ্ঞান, ভূগোল, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি
২) উচ্চমাধ্যমিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি – প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান
৩) সাধারণ বিজ্ঞান – ৯ম ও ১০ম শ্রেণি
৪) মাধ্যমিক ভূগোল – ৯ম ও ১০ম শ্রেণি

®® নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসনঃ
১) MP3 নৈতিকতা,মূল্যবোধ ও সুশাসন
২) উচ্চমাধ্যমিক পৌরনীতি ১ম পত্র – মোজাম্মেল হক

®® সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণঃ
১) Professors Job Solution
২) এসিউরেন্স ৪০তম বিসিএস প্রিলি ডাইজেস্ট।

৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় পাশ করছেন ২০ হাজার ২৭৭ জন প্রার্থী

৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় পাশ করছেন ২০ হাজার ২৭৭ জন প্রার্থী

ফল আজ বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে। কিছুক্ষণের মধ্যে ফল পিএসসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক প্রথম আলোকে বলেন, ৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় ২০ হাজার ২৭৭ জন পাশ করেছেন। এই প্রার্থীরা এখন লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবেন।

মোহাম্মদ সাদিক বলেন, ৩৮ তম ও ৩৯ তম বিসিএসের কাজের পাশাপাশি আমরা এই বিসিএসের ফল তৈরি করছি। সব কিছু সঠিক ভাবে যাচাই বাছাই করতে কিছুটা বেশি সময় লেগেছে।

পিএসসি সূত্র জানায়, ৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করার জন্য আজ একটি বিশেষ সভা ডাকা হয়েছিল। সভায় ফল প্রকাশের সিদ্ধাান্ত হয়। কিছুক্ষণের মধ্যে ফল পিএসসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। চলতি বছরের ৩ মে ৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

SMS এর মাধ্যমে ফলাফল জানার উপায়: আপনার মোবাইলের ম্যাসেজ অপশন থেকে PSC <space> 40 <space> Reg No. লিখে পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে। যেমনঃ PSC 40 12345678 লিখে পাঠিয়ে দিন 16222 নম্বরে।

পিএসসির তথ্য অনুযায়ী, ৪০তম বিসিএসে আবেদন করেছিলেন ৪ লাখ ১২ হাজার ৫৩২ জন প্রার্থী। পরীক্ষা দিয়েছেন ৩ লাখ ২৭ হাজার প্রার্থী। গত বছরের ১১ সেপ্টেম্বর ৪০তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি। ৪০তম বিসিএসের আবেদন গ্রহণ শুরু হয় ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে।

৪০তম বিসিএসে মোট ১ হাজার ৯০৩ জন ক্যাডার নিয়োগ দেওয়া হবে। তবে এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

ক্যাডার অনুসারে, প্রশাসনে ২০০, পুলিশে ৭২, পররাষ্ট্রে ২৫, করে ২৪, শুল্ক আবগারিতে ৩২ ও শিক্ষা ক্যাডারে প্রায় ৮০০ জন নিয়োগ দেওয়ার কথা।

বিসিএস লিখিত বুকলিস্ট – BCS Written Book List

১///বাংলা(১ম ও২য় পত্র):
i) উচ্চতর স্বনির্ভর বিশুদ্ধ ভাষা-শিক্ষা, ড. হায়াৎ মাহমুদ
ii) বিসিএস রিটেনের বিগত বছরের প্রশ্ন
iii) বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাসা (ড. সৌমিত্র শেখর)
iv) বাংলাপিডিয়া থেকে “বাংলা সাহিত্য “অংশ


২/// ইংরেজি (১ম ও ২য় পত্র):
i) Saifurs Newest grammar
ii) S.M. Zakir Hussain এর Tactics for Effective Reading and Critical Thinking.
iii) সামারি লেখার অভ্যাস গঠনের জন্য প্রতিদিন “Daily Star” এর Editorial অংশ ভালভাবে পড়ুন এবং তার সামারি তৈরি করুন।
iv) সঠিক শব্দ বিন্যাসে অলংকৃত করতে ফলো করতে পারেন “Saifur’s IELTS Writing” এই বইটি সেই সাথে আরও ভাল হয় যদি S.M. Zakir Hussain রচিত “Effective Writing Skills For Advanced Learners” বইটি পড়তে পারেন

/// গাণিতিক যুক্তি ও মানসিক দক্ষতা:
i) মাধ্যমিক বীজগণিত ও জ্যামিতি (৯ম-১০ম শ্রেণী)
ii) মাধ্যমিক উচ্চতর গণিত (৯ম-১০ম শ্রেণী)
iii) নিম্ন মাধ্যমিক গণিত (৮ম শ্রেণী ও ৭ম শ্রেণী )
iv) বিসিএস রিটেনের বিগত বছরের প্রশ্ন

/// সাধারণ বিজ্ঞান:
i) ডা জামিল’স রিটেন গাইড
ii) উচ্চ মাধ্যমিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান (১১শ-১২শ শ্রেণী)
iii) বিসিএস রিটেনের বিগত বছরের প্রশ্ন


৫/// বাংলাদেশ বিষয়াবলী (১ম ও ২য় পত্র):
i) দৈনিক প্রথম আলো
ii) উইকিপিডিয়া ও বাংলাপিডিয়া
iii) বাংলাদেশের সংবিধান এবং আইন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট
iv) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট
v) অর্থনৈতিক সমীক্ষা
vi) বিসিএস রিটেনের বিগত বছরের প্রশ্ন


৬/// আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী:
i) International Relations and Bangladesh / ইন্টার্ন্যাশনাল রিলেশনস এন্ড বাংলাদেশ – Harun Ar Rashid (হারুন আর রশীদ)
ii) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, সংগঠন ও পররাষ্ট্রনীতি (শাহ মো: আব্দুল হাই)
iii) মাসিক জাতিসংঘ সংবাদ (যে কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থগারে পাওয়া যাবে)
iv) বিবিসি ব্লগ,সাপ্তাহিক রোববার ম্যাগাজিন
v) Daily Star,New York Times
vi) উইকিপিডিয়া এবং বিসিএস রিটেনের বিগত বছরের প্রশ্ন

সাবলীল ইংরেজি লিখতে চান? – গ্রন্থনা: জাহিদ হোসাইন খান

টুকটাক ইংরেজিতে কথা বলতে পারলেও আমাদের অনেকেরই লেখার অবস্থা নড়বড়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার খাতায় লেখালেখি থেকে শুরু করে গবেষণাপত্র, ভিনদেশে ফেলোশিপ বা বৃত্তির জন্য আবেদনপত্র, ‘স্টেটমেন্ট অব পারপাস’সহ অনেক লেখাই ঠিক মানসম্পন্ন হয় না। দুর্বল বাক্যগঠন আর অসামঞ্জস্যপূর্ণভাষারীতি আমাদের পিছিয়ে দেয়। ইংরেজিতে প্রাঞ্জল আর সাবলীল লেখালেখির উপায় নিয়ে কথা হলো একটি আন্তর্জাতিক অর্থ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত নাবিরা রহমানের সঙ্গে। তিনি ২০১৪ সালে জাতিসংঘের ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কাউন্সিল ইয়ুথ ফোরাম সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। বললেন, কীভাবে ইংরেজি লেখায় প্রাঞ্জলতা আনা
,
১।নিয়মিত লিখুন, প্রতিদিন অন্তত ৩০০ শব্দ
নিয়মিত ইংরেজিতে লেখা হয় না বলেই আমরা অনেকে ইংরেজি লিখতে ভয় পাই। এই দুর্বলতা কাটানোর প্রথম এবং সবচেয়ে কার্যকর উপায় হলো প্রতিদিন লেখা। নিয়ম করে প্রতিদিন অন্তত ৩০০ শব্দে কিছু না কিছু লিখুন। যেকোনো বিষয়ে সকালে কিংবা রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে লিখে ফেলুন। প্রথম দিকে লেখালেখির শুরুতে হয়তো কিছুটা জড়তা থাকবে। টানা ১০ দিন লিখুন, দেখবেন ধীরে ধীরে এই জড়তা কেটে গেছে।
২।ব্যাকরণে মনোযোগ দিন
ইংরেজিতে লেখালেখির সময় প্রথম থেকেই ব্যাকরণে মনোযোগ দিন। দুর্বল ব্যাকরণ-জ্ঞান অনেক সাবলীল লেখাকেও দুর্বোধ্য করে দেয়। প্রতিদিন ইংরেজি ব্যাকরণের দুই থেকে তিনটি নিয়ম আত্মস্থ করতে চেষ্টা করুন। উদাহরণসহ বুঝে ব্যাকরণ পড়ুন, মুখস্থ করবেন না। একটি ভালো ইংরেজি ব্যাকরণ বইকে ‘রেফারেন্স’ হিসেবে কাজে লাগাতে পারেন।
৩।নিয়মিত ইংরেজি পত্রিকা পড়ুন
বিষয়ভিত্তিক পড়াশোনার বাইরে ইংরেজি দৈনিক পড়ার অভ্যাস করুন। পত্রিকা পড়ার অভ্যাস যেমন আপনার বুদ্ধিবৃত্তিক দক্ষতা বাড়াবে, তেমনি লেখালেখির জন্য অনেক নতুন নতুন বিষয় খুঁজে পাবেন। প্রথম দিকে হয়তো অনেক শব্দের অর্থ বুঝবেন না, বুঝতে সময় লাগবে। টানা দুই সপ্তাহ পড়ুন, দেখবেন এরপর ব্যাপারটা আয়ত্তে এসে যাবে। দু-একটা শব্দের অর্থ না জানলেও বাক্যের ভাবার্থটা আপনি ধরতে পারবেন। নিয়মিত পাঠাভ্যাস আপনার লেখার ওপর ধীরে ধীরে প্রভাব ফেলবে।
৪।বিষয়ভিত্তিক সাময়িকী-নিবন্ধ পড়ুন
টাইম ম্যাগাজিন, রিডার্স ডাইজেস্ট, দ্য ইকোনমিস্টসহ স্বনামধন্য ইংরেজি ম্যাগাজিন বা জার্নালে আপনার পছন্দসই নিবন্ধ পড়ার অভ্যাস করুন। ম্যাগাজিনগুলোতে যে ঢঙে লেখা হয়, তা নিজের লেখার ক্ষেত্রে প্রয়োগ করুন। টানা চার সপ্তাহ এমন অভ্যাস করলে নিজের লেখার মধ্যে কী কী পরিবর্তন আসছে, তা নিজেই টের পাবেন।
৫।
স্রেফ লেখার জন্য লেখা নয়
দিস্তাভরা কাগজে লিখলেন, আর কী ভুলভ্রান্তি হলো, তা খুঁজে বের করার চেষ্টা করলেন না, তাহলে হবে না। ভুলগুলো থেকেই যাবে। এ ক্ষেত্রে প্রতিদিন যা লিখছেন, তা ভালো ইংরেজি জানেন-বোঝেন, এমন কাউকে পড়ার অনুরোধ করতে পারেন। তাঁর কাছ থেকে মতামত নিয়ে কী কী দুর্বলতা ও ভুল আছে, তা শুধরে নিন। যদি এমন কাউকে না পান, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজের শিক্ষককে অনুরোধ করতে পারেন। কী কী ভুল হচ্ছে, সেদিকে খেয়াল রাখুন, ভুল শুধরানোর চেষ্টা করুন।
৬।শব্দভান্ডার বিস্তৃত করুন
আমরা লেখালেখির ক্ষেত্রে খুব প্রচলিত শব্দগুলো ব্যবহার করি। ইংরেজিতে সাবলীল লেখালেখির জন্য বহুমাত্রিক শব্দ ব্যবহারের দিকে মনোযোগী হোন। একই বাক্য বা একই গঠনের বাক্য বারবার না লিখে শব্দের বৈচিত্র্য ব্যবহার করে খুব ছোট ও সংক্ষিপ্ত লেখাকেও আকর্ষণীয় করে তোলা যায়। প্রতিদিন চেষ্টা করুন নতুন পাঁচ থেকে আটটি শব্দ আত্মস্থ করতে। শুরুতেই জিআরই-জিম্যাট পরীক্ষার শব্দভান্ডারগুলো না শিখে ইন্টারনেট থেকে কার্যকর শব্দগুলো খুঁজে নিন। টানা দুই মাস শব্দভান্ডার সমৃদ্ধ করার পেছনে সময় দিন। যে শব্দগুলো শিখবেন, তা সকালে ঠিক করে নিন, সারা দিন মনে মনে তা স্মরণ করুন। কয়েকবার সেই শব্দগুলো লিখলে মনে রাখা সহজ হবে।
৭।সুন্দর বাক্য লেখা শিখুন, ভিন্নতা তৈরি করুন
উচ্চশিক্ষার জন্য আবেদনপত্র, স্টেটমেন্ট অব পারপাসসহ বিভিন্ন থিসিস পেপার ও অ্যাসাইনমেন্ট লেখার জন্য সুন্দর বাক্য লেখার অভ্যাস করুন। ইন্টারনেট ঘেঁটে এমন কিছু উদাহরণ (টেমপ্লেট) দেখে বাক্যগঠনরীতি শিখতে পারেন। একই বাক্যকে নানাভাবে লেখার চর্চা করুন। এভাবে ছয় সপ্তাহ অভ্যাস করুন, দেখবেন লেখালেখিতে পরিবর্তন এসে গেছে।

৮।অনুসরণ করুন, অনুধাবন করুন
আপনি যে লেখকের লেখা পছন্দ করেন, তাঁকে অনুসরণ করে লেখালেখির চর্চা করুন। সেই লেখকের ভাবনাকে অনুধাবন করার চেষ্টা করুন। যতক্ষণ নিজের লেখাটা মনঃপূত না হচ্ছে, ততক্ষণ চর্চা চালিয়ে যান। কোনো কিছু লেখার আগে কী লিখবেন, তার একটি মানচিত্র মাথায় সাজিয়ে নিন। সেইভাবে ভাগ ভাগ করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে লেখার অভ্যাস রপ্ত করুন।
৯।প্রতিদিন যা শিখছেন, প্রতিদিনই তা চর্চা করুন
যা শিখছেন প্রতিদিন, তা প্রতিদিনই চর্চা করুন। ফেসবুকে লেখালেখি থেকে শুরু করে ই-মেইলের লেখার মধ্যেও যা শিখছেন, তা প্রয়োগ করতে চেষ্টা করুন। ফেসবুকে লেখালেখি কিংবা খুদে বার্তা লেখার সময় ‘শর্টকাটে’ লেখার অভ্যাস না করাই ভালো। অনলাইনে লেখালেখির ক্ষেত্রে গ্রামারলি, জিনজার সফটওয়্যারসহ বিভিন্ন অ্যাপস-সফটওয়্যার-ওয়েবসাইটের সহায়তায় নির্ভুল বাক্য লেখায় সহযোগিতা নিন।
১০।ম্যাগাজিনগুলোতে লেখা পাঠান
। লেখালেখির সময় মনে মনে বাংলা থেকে ইংরেজি অনুবাদ করে লিখবেন না। লেখায় সাবলীলতা আনার জন্য ‘লিঙ্কিং ওয়ার্ডস’ ও ‘ফ্রেজ’ ব্যবহারে গুরুত্ব দিন। বৈচিত্র্যময় লেখালেখির জন্য ভালো মানের দেশি-বিদেশি ম্যাগাজিনগুলোর মতামত পাতায় লেখা পাঠানো শুরু করুন। হয়তো শুরুতে ছাপা হবে না, তবু চেষ্টা চালিয়ে যান। ছাপা হলে সম্পাদক কোন অংশগুলো কীভাবে সম্পাদনা করেছেন, সেটা লক্ষ করুন। বন্ধুবান্ধব বা সহকর্মীদের মধ্যে যাঁরা ভালো ইংরেজিতে লেখালেখি করেন, তাঁদের কাছ থেকে নির্দ্বিধায় পরামর্শ নিন।

লাক্স সুন্দরী থেকে বিসিএস প্রশাসন ক্যাডার – এখান থেকে শিক্ষা নিন

ইট পাথরের নগরী ঢাকা শহরেই জন্ম ও বেড়ে উঠা। বাবা ডা. আজিজুল হক খান একজন সরকারী কর্মকর্তা। মা সালমা সুলতানা গৃহিণী। ৫ম শ্রেণীতে পেয়েছেন ট্যালেন্টপুল বৃত্তি। ছোট বেলা থেকেই বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতেন। অর্জনের ঝুলিতে রয়েছে গান ও একক অভিনয়ে জাতীয় পর্যায়ে পুরস্কার। কাব স্কাউট জাতীয় পর্যায়ে রানার্স আপ হয়েছেন। এছাড়াও বিভিন্ন সময় নাচ,অভিনয় ও গানে সেরা হয়ে পেয়েছেন পুরস্কার। এসব কাজে সব সময় তার মা অনুপ্রেরণা দিতেন ও তার সাথে যেতেন।
পড়ালেখাও সেরা ছিলেন। সব সময় ক্লাসে প্রথম হতেন। বিন্দুবাসিনী সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিকে বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে জিপিএ ৫ পেয়েছেন। উচ্চ মাধ্যমিকে কুমুদিনী সরকারী কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে এবারও জিপিএ ৫ পেয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের সমাপ্তি ঘটান।
উচ্চ মাধ্যমিকের সফল সমাপ্তির ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে। 😊
.
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর শুরু থেকেই ভালো পড়াশোনা করেন। সুন্দরী হওয়াতে বন্ধুদের উৎসাহে লাক্স চ্যালেন আই সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার-২০১০ এ টপ সেভেনে জায়গা করে নেন। পুরস্কার জিতে নেন ক্লোজ আপ মিস বিউটিফুল স্মাইল ক্যাটাগরিতে। তারপর কিছু টিভিসিও করেন।
.
রাষ্ট্রবিজ্ঞানে ভালো ফলাফলের মাধ্যমে স্নাতক সম্পন্ন করার পর স্বপ্ন দেখেন বিসিএস ক্যাডার হয়ে দেশের সেবায় নিয়োজিত হবেন। তখন থেকেই বিসিএসের জন্য জোর প্রস্তুতি শুরু করেন। বাংলা ও ইংরেজি পত্রিকা নিয়মিত পড়তেন। বাংলাদেশের ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধ, সংবিধান, সম্প্রতি ঘটে যাওয়া দেশ বিদেশের ঘটনাগুলো জানতেন। আর গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নোট করে রাখতেন। রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী হওয়ায় এসব বিষয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ তৈরি হয়।😊
তাছাড়া তিনি যেকোনো বিষয়ে মুক্তহস্তে লিখতে পারতেন। উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান বিভাগ থাকায় গণিত আর ইংরেজিতে দক্ষ ছিলেন। প্রতিদিন একটা লক্ষ্য নির্ধারণ করে তা পুরণ করতেন। একঘেয়েঁমি যাতে না আসে এজন্য প্রতিদিন ৩-৪টা বিষয় পড়তেন। তখনকার সহপাঠী বর্তমান স্বামী মেহেদী হাসান ফুয়াদের সাথে ইংরেজিতে কথা বলতেন। ইংরেজিতে কথা বলার অভ্যাস ভাইভাবে কাজে দিয়েছে। নিয়মিত ও কৌশলী পড়ালেখার দরুন জীবনের প্রথম চাকরির ভাইভায় ২০১৭ সালে সাধারন বিমা কর্পোরেশনে সহকারী ব্যবস্থাপক পদে চাকরি পান। তারপর ৩৭তম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন।
বিসিএস ক্যাডার হতে: যারা বিসিএস ক্যাডার হতে চায় তাদের উদ্দেশ্যে সোহানিয়া পরামর্শ দিয়ে বলেন, নিয়মিত জাতীয় দৈনিক পত্রিকা পড়া উচিত। প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিনই শেষ করতে হবে। প্রতিদিন কিছু সময়ের জন্য হলেও কিছু লেখা উচিত। লেখালেখির দক্ষতা বেশ কাজে দেয়। আর ব্যসিক তৈরি করার জন্য মাধ্যমিকের মৌলিক বইগুলো পড়া যেতে পারে। সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করে পড়াশোনা করতে হবে। যদি আত্মবিশ্বাস আর লক্ষ্য ঠিক থাকে তাহলে স্বপ্ন পুরণ হবেই। মন থেকে কিছু চাইলে আর সে অনুযায়ী পরিশ্রম করলে আল্লাহ তার স্বপ্ন পুরণ করেন।

বিসিএস প্রিলি প্রস্তুতি – ইংলিশ সাহিত্য দেখে নিন

✪ ইংরেজি সাহিত্যের প্রথম মহাকাব্য হল- Beowulf
✪ ইংরেজি গদ্যের জনক – John Wyclif
✪ শেক্সপিয়র জন্মগ্রহণ করেন-১৫৬৪ সালে
✪ শেক্সপিয়র মৃত্যুবরণ করেন- ১৬১৬ সালে
✪ শেক্সপিয়র নাটক লিখেছেন – ৩৭ টি।
✪ William Wordsworth এর উপাধি হল- The Poet of Nature.
✪ John Keats এর উপাধি হল- The Poet of Beauty.
✪ John Milton এর উপাধি হল- English Epic Poet.
✪ George Orwell এর মূল নাম হল- Eric Arthur Blair
✪ George Eliot এর মূল নাম হল-Mary Ann Evans.

✪P.B. Shelley কে Oxford University থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল।
✪S.T. Coleridge আফিমে আসক্ত ছিল।
✪ইংরেজি উপন্যাসের জনক- Henry Fielding
✪T.S. Eliot কে তার বিখ্যাত কবিতা ‘The Waste Land’ এর জন্য নোবেল পুরস্কার পেয়েছিল
✪John Keats পেশাগতভাবে একজন ডাক্তারছিলেন।
✪ Winston Churchill ছিলেন এমন একজন রাষ্ট্রপতি যিনি সাহিত্যে নোবেল পেয়েছিলেন।
✪Sydney William Porter এর pen name হল O’ Henry.
✪T.S.Eliot তার তত্ত্ব ‘Objective Co- relative এর জন্যবিখ্যাত।
✪Sigmund Freud তার তত্ত্ব ‘Psycho Analysis’ এর জন্য বিখ্যাত।
✪James Joyce তার তত্ত্ব ‘Stream of Consciousness’ এর জন্য বিখ্যাত
✪ইংরেজি সাহিত্যে বিদ্রোহী কবি বলা হয়- Lord Byron

✪ইংরেজি কবিতার জনক- Geoffrey Chaucer
✪জন কিটস মারা গিয়েছিলেন- যক্ষায়
✪Bertrand Russel হলেন একজন দার্শনিক কিন্তু সাহিত্যে নোবেল পেয়েছিলেন।
✪প্রথম ইংরেজি ডিকশনারি রচনা করেন- Samuel Johnson

========
প্রায় একই রকম নাম কিন্তু ভিন্ন সাহিত্যিকের সাহিত্যকর্ম :
১) To Daffodil =Robert Herrick
The Daffodil= Wiliam Wordsworth
২)A tale of tubs=jonathan swift
A tale of Two cities=Charls Dickens
3)The battle of books= jonathan Swift
The battle of life=Dickens
4)The Patriot= Robert browning
Patriotism =sir walter scott
5)Rape upon rape= henry fielding
Rape of the lock=Alexander pope
6) Candide=voltaire
Candida= G.B. Shaw

7)Rainbow(poem)=William wordsworth
Rainbow(novel)= D.H Lawarence
8) prometheus bound=Aeschylus
Prometheus unbound = P.B. Shelly.

ইংরেজী ও বাংলা সাহিত্যের চমৎকার মিলবন্ধন:
১)বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন চর্যাপদ,
ইংরেজী সািহিত্যের আদি নিদর্শন বিউলফ(Beowulf)
২)চর্যাপদ তথা বাংলা সাহিত্যের আদি কবি লুইপা,
ইংরেজীতে Caedmon(ক্যাডমন)
৩)বাংলা সাহিত্যের ১ম মহিলা কবি চন্দ্রাবতী
আর ইংরেজী সাহিত্যে Aphra benn
৪) বাংলা গদ্যের আদি নিদর্শন কোচবিহারের রাজার চিঠি,
ইংরেজী গদ্যের আদি নিদর্শন Anglo saxon chronicle.
৫)বাংলা গদ্যের জনক ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর,
ইংরেজী গদ্যের জনক John wycliffe.

৬) বাংলা সাহিত্যে তুর্কি শাসকদের কারনে অন্ধকার যুগ ১২০১-১৩৫০,
ইংরেজীতে ফরাসি নরম্যান শাসকদের কারনে ১৪০০-১৫০০।
৭) বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস বিষয়ক ১ম গ্রন্থ লিখেছে দীনেশ চন্দ্রসেন,
ইংরেজীতে Saint vernable Bede.
৮)বাংলা মূদ্রাক্ষরোর জনক চার্লস উইলকিন্স
ইংরেজীর william caxton.
৯) ১ম রোমান্টিক উপন্যাস কপালকুন্ডলা
ইংরেজীতে Morte D’ Arthur.
১০)বাংলা প্রথম ট্র্যাজিডি কীর্তিবিলাস,
ইংরেজী Gorbuduc.
১১)প্রথম সার্থক ট্র্যাজিডি কৃষ্ণকুমারী,
ইংরেজী Dr.Faustaus.
১২)বাংলা সাহিত্যে ছিল ইয়ং বেঙ্গল গোষ্ঠী,
ইংরেজীতে university wits.
১৩)কবিদের কবি নির্মলেন্দু গুন,
ইংরেজী সাহিত্যে Edmund spencer.

১৪)প্রথম সার্থক কমেডি মাইকেল মধূসূদন দত্তের পদ্মাবতী,
ইংরেজীতে Nicholus udal এর Rulf roister Doister.
১৫)ইংরেজী সনেটের প্রবর্তক স্যার থমাস ওয়াট,
বাংলা সনেটের মাইকেল মধূসূদন দত্ত।
১৬)১ম বাংলা উপন্যাস আলালের ঘরের দুলাল,
ইংরেজী samuel richardson এর Pamela.
১৭) বাংলায় অমিত্রাক্ষর(Blank verse) এর জনক মধূসূদন,
ইংরেজীতে ক্রিস্টোফার মার্লো।
১৮) ১ম ইংরেজ মহাকবি মিল্টন,
বাংলা সাহিত্যের মহাকবি বলা হয় আলাওলকে।
১৯)অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রথম মহাকাব্য মেঘনাথবধ কাব্য,
ইংরেজীতে মিল্টনের প্যারাডাইজ লস্ট।
২০)বাংলা প্রথম শোকগাথা ঈশ্বরচন্দ্রের প্রভাবতী সম্ভাষণ,
ইংরেজী সাহিত্যে জন মিল্টনে লাইচিডাস(Lycidas)
২১) বাংলা সার্থক উপন্যাসের জনক বঙ্কিম চন্দ্র,
ইংরেজী সার্থক উপন্যাসের জনক হেনরি ফিল্ডিং (Henry Fielding)

২২)ঐতিহাসিক উপন্যাসের জন্য বিখ্যাত স্যার ওয়াল্টার স্কট,
বাংলার ওয়াল্টার স্কট বঙ্কিম চন্দ্র।
২৩)বাংলা সাহিত্যের করুন চরিত্র হৈমন্তী,
একই রকম ইংরেজী চরিত্র Clarissa.
২৪)মনোসমীক্ষামূলক উপন্যাস সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহর চাদের আমাবস্যা,
ইংরেজী তে ডেনিয়েল ডিফোর Robinson crusoe(বিতর্ক আছে ভ্রমন কাহিনী)
২৫)বাংলার শেলী হিসেবে পরিচিত জীবনানন্দ দাশ কে বলা হয় প্রকৃতির কবি,
ইংরেজীতে (poet of nature) প্রকৃতির কবি উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থ (wilian wordsworth)
২৬) বাংলাদেশের বিদ্রোহী কবি ও সৈনিক কাজী নজরুল ইসলাম,
ইংরেজীতে soldier & poet হলেন লর্ড বায়রন(Lord Byron)
২৭) বাংলা সাহিত্যে শ্রষ্ঠ Dramatic Monologue (স্বগতোক্তি) জসীম উদ্দীনের কবর কবিতা,
ইংরেজীতেRobert browning এর Andre del sarto.

২৮)বাংলা সাহিত্যে দূ:খবাদী কবি যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত,
ইংরেজী সাহিত্যে ম্যাথু আর্নল্ড(Mathewo Arnold)
২৯)বাংলা সাহিত্যে কবি ও চিত্রকর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর,
ইংরেজীতে wilam Blake
৩০)রবীন্দ্রনাথের কিশোর চরিত্র ফটিকের করুন গল্প ছুটি,
ইংরেজীতে চার্লস ডিকেন্সের Oliver twist.
৩১) বাংলা ছোট গল্পের জনক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর,
ইংরেজী Short srtory র জনক Edgar allan poe.
৩২)বাংলা সাহিত্যের পল্লী কবি জসীমউদ্দীন,
ইংরেজী সাহিত্যের Pearl S Buck।

বিসিএস প্রিলি – সাম্প্রতিক বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী

১। বাংলাদেশের বর্তমান মাথাপিছু আয় – ১৯০৯মার্কিন ডলার
২। বাংলাদেশের বর্তমান জিডিপি প্রবৃদ্ধি হার – ৮.১৩%
৩। বঙ্গবন্ধু -১ স্যাটেলাইট কবে উৎক্ষেপন হয়েছে? ১২মে, ২০১৮
৪। বাংলাদেশকে কবে উন্নয়ন শীল দেশের ক্যাটাগরির শর্ত পূরণ করে ? ১৬ মার্চ ,২০১৮।
৫। ডাক বিভাগের অার্থিক লেনদেনের জন্য চালু টাকার নাম কী ? =ডাকটাকা।
৬।দেশের ১ম ফিশ ওয়ার্ল্ড একুরিয়াম কোথায় ? =কক্সবাজারে।
7)বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের বাসস্থান, শিক্ষা সহায়তা ও অন্যান্য ঝুঁকি মোকাবেলায় ১০ মাসের জন্য জাতিসংঘের নেয়া প্ল্যানের নাম কি? উঃ- জয়েন্ট রেসপন্স প্ল্যান।
৮.শেখ হাসিনা সেনানিবাস কোথায় অবস্থিত? =লেবুখালী, পটুয়াখালী
৯।পাকিস্তানের পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষে প্রথম হিন্দু দলিত নারী সিনেটর – =কৃষ্ণা কুমারি কোহলি
১০। পাটের তৈরি পলি ব্যাগ / সোনালী ব্যাগ তৈরীর আবিষ্কিরক কে? = ডঃ মুবারক আহমদ খান।।।
11)সম্প্রতি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের ই-ডেটাবেজ তৈরির জন্য কী নামে পরিচয়পত্র প্রদান করা হবে? #উঃ – ইউনিক স্মার্টকার্ড
১২। দেশের ১২ তম বা সর্বশেষ সিটি কর্পোরেশন কোনটি ? = ময়মনসিংহ
১৩। বাংলা সন কত? = ১৪২৬
১৪। দেশের বর্তমান মুদ্রাস্ফীতির হার কত ? 5.68%
১৫। মুন্সি গন্জে ২ মার্চ উন্মোচন করা ”পতাকা ৭১” ভাস্কর্যটির ভাস্কর কে? = রুপম রায়।
১৬।দেশের প্রথম নারী প্রোগ্রামার কে ? = শাহেদা মুস্তাফিজ
১৭।জাতীয় ভোটার দিবস কবে ? =১ মার্চ
১৮।মালদ্বীপের বর্তমান প্রেসিডেন্টের নাম কী ? =ইব্রাহিম মোঃ সোলিহ
১৯।পূর্ব গৌতা ও ডুমা শহরটি অবস্থিত কোথায় ? = সিরিয়া।
20) বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন ডেপুটি গভর্ণরের নাম কী? # উঃ- আহমেদ জামাল
২১। কমনওয়েলথ এর বর্তমান সদস্য কত? = ৫৩ ( নতুন গাম্বিয়া )
২২।সম্প্রতি মঙ্গল গ্রহে পৌছানো ”মঙ্গলযান” প্রেরনকারী দেশের নাম কী ? =ভারত
২৩।বিশ্ব অটিজম দিবস কবে ? =২রা এপ্রিল
২৪।স্বাধীনতা পদক কত জনকে দেওয়া হয়? = ১৮
২৫।বাংলাদেশের কোনটিকে ২০১৮ সালের product of the year ঘোষণা করা হয়? =ওষুধ
২৬.কাঁকন বিবি কখন মৃত্যু বরণ করেন? =২১ মার্চ ২০১৮।
২৭।কাঁকন বিবি কে কোন সালে “বীর প্রতীক” উপাধি দেয়া হয়? উঃ১৯৯৬।।
২৮।কাঁকন বিবি কোন সম্প্রদায়ের ছিলেন? উঃখাঁসিয়া।
২৯।৯১ তম আস্কারে সেরা অভিনেএীর পুরষ্কার কে পান? উঃ অলিভিয়া কোলম্যান
30। স্টিফেন হকিং মারা যান কবে, কত বছর বয়সে? # ১৪মার্চ, ২০১৮। (৭৬ বছর)
31। নেপালে বিদ্ধস্ত বিমানটি কোন মডেলের, বিমানের কোড নম্বর কত? US Bangla Airline, মডেলঃ- ড্যাশ ৮- কিউ-৪০০(কোড নাম্বারঃ-এস-২ এজিইউ), ফ্লাইট নাম্বার-২১১
32। সর্বশেষ ওয়ানডে স্ট্যাটাস প্রাপ্ত দেশের নাম কি? ওমান
33। সুখি দেশের তালিকায় বাংলাদেশ কততম? ১২৫ তম ( পূর্বে ছিল ১১৫)
34। দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন প্রেসিডেন্টের নাম কী? # সিরিল রামাফোসা
35। ২০১৯ সালে স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করেন কতজন? ১৩ জন ও একটি প্রতিষ্ঠান
36। শীর্ষ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ কোনটি? # সোমালিয়া
37। আগামী কমনওয়েলথ গেমস অনুষ্ঠিত হবে কোথায়? ইংল্যান্ড
38। স্টিফেন হকিং কোন রোগে আক্রান্ত ছিলেন? Motor Neurone
39। বর্তমান প্রধান বিচারপতি কে এবং কত তম? # সৈয়দ মাহমুদ হাসান, ২২ তম।
40। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সর্বকনিষ্ঠ অধিনায়ক কে হলেন? # রশিদ খান (আফগানিস্তান)
41। প্রথম কোন শহর শীতকালীন ও গরমকালীন অলিম্পিক আয়োজন করবে? # বেজিং
42। সম্প্রতি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কোন জিনিসকে ব্যান করলেন? bumb-stock devices
43। সম্প্রতি কোন মুসলিম দেশ মহিলাদের মিলিটারিতে নিয়োগের সম্মতি দিলো? সৌদি আরব
44। চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর-জি) টেলিযোগাযোগ সেবা চালু হয় কবে ১ ৯ফেব্রুয়ারি (২০১৮)
45। সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ – নিউজিল্যান্ড
46। অস্ট্রেলিয়ার প্রথম নারী প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন কে? সুসান কাইফেল
47। দেশের ইতিহাসের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২.৬ ডিগ্রী,পঞ্চগড়ে
র তেঁতুলিয়ায়।
48। বাংলাদেশের কোনটিকে ২০১৮ সালের product of the year ঘোষণা করা হয়? ওষুধ
49। বাংলাদেশ পুলিশের নতুন আইজিপির নাম কি? ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। তিনি দেশের ২৯তম আইজিপি।
50। বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ওয়াচ টাওয়ারের নাম কি? জ্যাকব টাওয়ার, এর উচ্চতা ২২৫ ফুট। এটি ভোলা জেলার চরফ্যাশনে অবস্থিত।
51। বাংলাদেশের প্রথম ছয় লেনের ফ্লাইওভার কোথায় অবস্থিত? ফেনীর মহিপালে। এর মুল দৈর্ঘ্য ৬৯০ মিটার। উদ্বোধন করা হয় ৪ জানুয়ারি ২০১৮।
52। বিশ্বের সর্বশেষ প্রচলিত মুদ্রার নাম কি? South Sdanese Pound(SSP)।
53। বর্তমানে জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত প্রচলিত মুদ্রার সংখ্যা : ১৮০টি।
54। বিশ্বের বৃহত্তম উভচর উড়োজাহাজ,এটি চীনের তৈরি। তার নাম কি? AG600
55। 2022 সালের শীতকালীন অলিম্পিক কোথায় অনুষ্ঠিত হবে? বেজিং, চীন
56। বর্তমানে বাংলাদেশের মন্ত্রিসভায় টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী কতজন? ৪জন
57। মহাগ্রন্থ আল কুরআনের আদলে দেশের প্রথম কুরআন ভাস্কর্য কোথায় তৈরি করা হয়? কসবা,ব্রাহ্মণবাড়িয়া। ভাস্কর্যটির উচ্চতা ১৬ ফুট এবং প্রস্থ ৮ ফুট। ঢাবির কামরুল হাসান শিপন এটির ডিজাইন করেন।
58। SpaceX এর প্রতিষ্ঠাতার নাম কি? এলন মাস্ক 59। ২০১৮ বিশ্ব ধর্ম সম্মেলন কোথায় অনুষ্ঠিত হলো? বিহার
60। বাংলাদেশে কোন তারিখে প্রথম মুদ্রার প্রচলন হয়? ৪মার্চ, ১৯৭২
61। বাংলাদেশের Smart Card কোন দেশে তৈরি হয়? ফ্রান্স
62। বিশ্বের প্রথম জাদুঘর প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো মিসরের আলেকজান্দ্রিয়াতে
63। বর্তমান অর্থ সচিব- আব্দুর রউফ তালুকদার
64)বাংলাদেশের বর্তমান FIFA Ranking? উঃ১৯৭।
65)পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী দেশ কোনটি এবং বাংলাদেশের অবস্থান কতো? উঃফিনল্যান্ড(বাংলাদেশ-১২৫)।
66) World’s biggest flag unveils by? উঃবলিভিয়া।
67) International Earth Hour was observed on? উঃ২৪ মার্চ ২০১৮
68)স্টিফেন হকিন্স কত বছর বয়সে ‘মটর নিউরন’ রোগে আক্রান্ত হন? উঃ ২১ বছর।
69)সম্প্রতি আলোচিত ” তুমব্রু ” সীমান্তবর্তী অঞ্চলটি কোথায় অবস্থিত? উঃ- বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছ

বিসিএস প্রিলি প্রস্তুতি – কোচিং ছাড়াই যারা পড়ছেন তাদের জন্য টপ টেন

কোচিং ছাড়াই যারা পড়ছেন তাদের জন্য টপ টেন: অনেকে বলছেন ভাইয়া প্রিলির একটা রুটিন ও কিছু পরামর্শদিন। তাদের জন্য
তাদের জন্য আমার আইডিয়া তৈরি করে দিলাম।
নিজের মত আপনারা সাজিয়ে নিবেন-
,
১)আপনি হাত –মুখ ধুয়ে শুকনো বিস্কিট, কেক আর পানি খেয়ে পড়তে বসে যান। সকালে যেকোনো পাঠ্যই ভাল মুখস্ত হয়। সেক্ষেত্রে আপনি সকালে সাধারণ জ্ঞান , বাংলা সাহিত্য,ইংরেজি সাহিত্য পড়তে পারেন।
২)২/৩ ঘন্টা পড়ে তারপর আপনি সকালের নাশতা সেরে নিন। একটু হাঁটাহাঁটি করুন, ঘরে পায়চারী করতে পারেন। সকালের নিউজটা ও দেখে নিন এক ফাঁকে।
৩)তারপর আবার পড়তে বসুন। এইবার আপনি সাধারণ গনিত ও মানসিক দক্ষতা বিষয়টা নিয়ে বসতে পারেন। একটু সময় নিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় আপনি সাধারণ গনিত ও
মানসিক দক্ষতা বিষয়টা অনুশীলন করেন। ২/৩ ঘণ্টা অনুশীলন করে আপনি দুপুরের গোসল করা, নামাজ/ প্রার্থনা, খাবার এর পর্বটা সেরে নিতে পারেন। তারপর হালকা ঘুম দিতে পারেন।
৪)দুপুরের হালকা ঘুম থেকে উঠে আপনি একটু হাঁটাহাঁটি/পায়চারি করতে পারেন। তারপর মাগরিবের আগে আর ঘন্টাখানেক আপনি সকালে যাহা পরেছেন তা রিভিশন দিতে পারেন।
৫) তারপর সন্ধ্যা থেকে আপনি ইংরেজি গ্রামার,বাংলা গ্রামার, বিজ্ঞান, কম্পিউটার বিষয় পড়তে পারেন। মোটামুটি এইভাবে একটা রুটিন আপনার মত
করে নিতে পারেন। আশা করছি আপনি সফল হবেন। ইনশা আল্লাহ
৬) রুজির মালিক আল্লাহ। তাই তার সাহায্য প্রার্থনা করুনন।
৭) বাবা মায়ের সাথে ভাল ব্যবহার করুন।তাদের দুয়া নিন।
৮) কঠোর পরিশ্রম না, বরং চতুর পরিশ্রম করুন। কৌশলি হন।
৯) খাতায় কিছু কিছু একই ধরনের জিনিস লিখে রাখবেন। অংকটা, ইংরেজি বানানগুলো খাতায় লিখে লিখে চর্চা করবেন।মনে থাকবে বেশি
১০) সব কিছু ছন্দ তৈরি করে পড়বেন না। ছোট ছোট কিছু ছন্দ মনে রাখার চেষ্টা
করুন। বাকিগুলো বুঝে মুখস্ত রাখুন। ইনশা আল্লাহ সফল হবেন।

বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতি – প্রচলিত প্রবাদ বাক্য

  1. বাংলা কথোপকথণে বহুল প্রচলিত ৭৫ টি প্রাচীন প্রবাদ ও প্রবচন (অর্থসহ)……
    1) বিড়ালের ভাগ্য শিকা ছেঁড়া- ভাগ্যক্রমে প্রত্যাশিত সুযোগ লাভ।
    2) বিড়ালের গলায় ঘণ্টা বাঁধা- আসল ঝুঁকি নেওয়া।
    3) বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ- বৃদ্ধ বয়সে শিশু বা যুবকের মতো আচরণ করা।
    4) বুকে ঢেঁকির পাড় পড়া- তীব্র আতঙ্কে প্রবল বেগে হ্রদপিন্ডের স্পন্দন হওয়া।
    5) বুক দশ হাত হওয়া- আনন্দিত হওয়া বা অহঙ্কৃত হওয়া।
    6) বুকে পিঠ করে মানুষ করা- অত্যন্ত আদর যত্ন করে পালন করা।
    7) বুকে বসে দাড়ি উপড়ানো- আশ্রয়দাতা বা প্রতিপালকের অনিষ্ট সাধন করা।
    8) বুদ্ধির গোঁড়ায় ধোঁয়া দেওয়া -চিন্তা করতে বসা।
    9) মাথার উপরে শকুন উড়া- অতিশয় বিপদ সন্নিকটে।
    10) মাথার ঘায়ে কুকুর পাগল-বিষম বিপদে পড়ে পাগল হওয়া।
    11) ঘাড়ে দুইটি মাথা থাকা-দুঃসাহসী।
    12) ঢেঁকির শব্দ বড়-ভিতরে যার কিছুই নেই তার বাজে বেশি।
    13) বামন গেল ঘর তো লাঙ্গল তুলে ধর-কর্মচারীদের উপর দৃষ্টি না রাখলে তারা কাজ করে না।
    14) বামন শুদ্দুর তফাৎ- আকাশ পাতাল পার্থক্য।
    15) বামনের গরু- যে ব্যক্তি বা বস্তুর নিকট অল্প ব্যয়ে প্রচুর কাজ পাওয়া যায়।
    16) বাবু বাছা করা-পুত্রবৎ সস্নেহে বাক্য বলা।
    17) বাবু বাছা বলা-স্নেহ ও আদর করা।
    18) কূলে রাখা কি শ্যাম রাখা-উভয় সঙ্কটে পড়া।
    19) বাতাসের সঙ্গে লড়াই করা- বিনা কারণে ঝগড়া করা।
    20) হাড় ভাজা ভাজা হওয়া-জ্বালাতন হওয়া।
    21) গাছে তুলে দিয়ে মই কেড়ে নেওয়া-উৎসাহ দিয়ে কর্মে প্রবৃত্ত করে অসহায় অবস্থায় সরে দাঁড়ানো।
    22) পাকা ধানে মই দেওয়া-লাভের মুখে সমূহ ক্ষতি করা।
    23) মাথা ঠোকাঠুকি হওয়া-অপ্রত্যাশিতভাবে দেখা দেওয়া।
    24) মুখ শুকিয়ে আমসি হওয়া-ভয় ব্যাধি উদ্বেগ ইত্যাদি হেতু মুখের রুগ্ন অবস্থা।
    25) যাহা বাহান্ন তাহাই তিপ্পান্ন-একটু ক্ষতির ভয়ে পশ্চাৎপদ না হওয়া।
    26) গদাই লস্করই চাল-অতি-মন্থর গতি।
    27) লেজে গোবরে ল্যাজে গোবরে-অক্ষমতার জন্য বিপদযস্ত অবস্থায় উপনীত।
    28) শিব গড়তে বাঁদর গড়া-খুব ভালো কিছু করতে গিয়ে খারাপ কিছু করা।
    29) সব শিয়ালেরা এক রা-সমদলবুক্ত সকল ব্যক্তির একই রকম মত।
    30) শুঁড়ির সাক্ষী মাতাল-অসৎ ব্যক্তিকে অসৎ ব্যক্তি সমর্থন করে।
    31) শুকনো কথায় চিড়ে ভিজানো-শুধু মুখের কথায় কাজ হয়না।
    32) শুকরের পাল ধোয়ানো-অনভীস্পিত ও গুণহীন প্রচুর সন্তান।
    33) ষাঁড়ের গোবর ষাঁড়ের নাদ-অকর্মণ্য লোক,ষাঁড়ের গোবর যেমন হিন্দু ধর্মের ধর্মকার্যে ব্যবহার করা হয় না।
    34) গোকুলের ষাঁড়- বৃন্দাবনের মুক্ত ষাঁড়ের মত স্বেচ্ছা-বিহারী দায়িত্বহীন ব্যক্তি।
    35) ষেটের বাছা,ষেটের কোলের বাছা-যষ্ঠীদেবীর অনুগ্রহপ্রাপ্ত সন্তান।
    36) ষোল আনা বাজিয়ে নেওয়া-সর্বদিক থেকে বিচার করে নেওয়া।
    37) অনেক সন্ন্যাসীতে গাজন নষ্ট-বহু কর্তায় অত্যন্ত বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা।
    38) গণ্ডূষ জলে সফরীর ফরফরানি-অতি অল্প পানিতে পুঁঠি মাছের ফর ফর করে ঘোরা।
    39) ধরাকে সরা জ্ঞান করা-মৃৎপাত্র বা সরার ন্যায় ক্ষুদ্র ও তুচ্ছ মনে করা।
    40) সস্তার কিস্তি মাত-পরিশ্রমে কোন বিষয়ে সাফল্য লাভ।
    41) সাত চড়ে রা করে না/ বেরোয় না-সমস্ত অত্যাচার মুখ বুঝে সহ্য করে।
    42) সাত নকলে আসল খাস্তা-বার বার নকল করতে করতে সূচনার যার নকল করা হয়েছে তা বিকৃত হওয়া।
    43) সাত পুরুষে না শোনা- বংশানুক্রমে না শুনা।
    44) সাতেও নেই পাঁচেও নেই-সংশ্রবশূণ্য।
    45) সাপটা ধরে কেনা-একদামে সমস্ত জিনিস কেনা।
    46) সাপের হাঁচি বেদেয় চিনে-অভিজ্ঞ লোকের লক্ষণ দেখে চিনতে ভুল করে না।
    47) সাপের হাঁড়ি-অতিশয় কোপনস্বভাবা নারী।
    48) সোনার কাঠি রুপোর কাঠি-জীবনকাঠি ও মরণকাঠি।
    49) সোনার দোয়াত কলম হওয়া-বিদ্বান ও বিত্তবান হওয়া।
    50) স্বভাব যায় না মলে ইল্লত যায় না ধুলে- পানি দ্বারা ধুলে ও নোংরামি দূর করা যেরূপ অসম্ভব।
    51) ইস্তক জুতা সেলাই নাগাদ চণ্ডী পাঠ –সংসারের চোট বড় সবধরনের কাজ।
    52) ভোজনং যত্র তত্র শয়নং হট্টমন্দিরে-যেখানে সেখানে আহার এবং হাটের চলার নিচে নিদ্রা।
    53) হাটের দুয়ারে কপাট-অসম্ভব ব্যাপার।
    54) হাড়ে বাতাস লাগা-স্বস্তি-বোধ করা।
    55) হাড়ে দূর্বা গজানো-বিপল প্রতীক্ষা।
    56) হাতে পাঁজি মঙ্গলবার-মীমাংসার নির্ভরযোগ্য উপায় থাকতে তর্ক বিতর্ক করা।
    57) হাতির ভোগ মুখে দূর্বা ঘাস-যেখানে প্রভূত ভোজের প্রয়োজন সেখানে অল্প খাদ্যর আয়োজন।
    58) অন্ধের নড়ি, অন্ধের যষ্টি-অসহায়ের সহায়।
    59) বজ্র আঁটুনি ফসকা গোড়া-কাজের আয়োজনের সময় খুব কড়াকড়ি কিন্তু কাজের সময় শিথিলতা।
    60) আঁত পাওয়া বার- মনের অভিপ্রায় জানা মুশকিল।
    61) আধার ঘরের বাতি-আঁধার ঘরের মানিক।
    62) আঁতুড়ে খোকা আঁতুড়ে ছেলে- সদ্যজাত শিশু।
    63) এঁড়ে তেল দেওয়া-চাটুবাক্য তোষামোদ করা।
    64) এক গ্লাসের ইয়ার এক সানকির ইয়ার-অন্তরঙ্গ বন্ধু।
    65) কড়ি গোনা, কড়ি কাঠ গোনা-বেকার অবস্থা যাপন।
    66) ঘোড়া ডিঙ্গিয়ে ঘাস খাওয়া-মুরব্বিকে অতিক্রম বা অগাহ্য করে কার্যোদ্বায়ের চেষ্টা করা।
    67) ঘোড়া দেখে খোঁড়া হওয়া-কাজ করার লোক দেখে আলস্য দেখানো।
    68) ঘোড়ায় জিন দিয়ে আসা-অত্যন্ত ব্যতিব্যস্ত ভাব,তিলেক বিলম্বে অস্থিরতার ভাব।
    69) চোদ্দ চাকার রথ দেখানো-মুশকিলে ফেলা।
    70) চোর কুঠরি,চোর কুঠুরি-ঘরের ভিতরের চোট গুপ্ত ঘর।
    71) চোর মরে,সাত ঘর মজায়ে-চোর ধরা পড়লে অনেক মকদ্দমায় জড়ায়।
    72) বাড়িতে ছুঁচোর কেত্তন,বাইরে কোঁচার পত্তন-বাড়িতে চরম দরিদ্র অবস্থা বাইরে বড়লোকি প্রদর্শন।
    73) ছুঁচোর মেরে হাত গন্ধ করা- তুচ্ছ ব্যক্তিকে শাস্তি দিয়ে অখ্যাতি লাভ করা।
    74) ধারে কাটা আর ভারে কাটা-স্বাভাবিক ক্ষমতায় কাজ করা।
    75) যার ধন তার নয়,নেপোয় মারে দই-পরিশ্রমী ব্যক্তিকে বঞ্চনা করে ধূর্ত লোকের ফল প্রাপ্তি।
    76) আপনা মাংসে হরিনা বৈরি। – হরিনের শত্রু তার মাংশ।
    খুব গুরুত্বপূর্ণ বাংলা সমার্থক শব্দের এক বিশাল ভান্ডার …মোট ৯০ টি ..যে কোন জব ও ভর্তি পরীক্ষায় বাংলা অংশে প্রায় বাংলা শব্দের সমর্থক অর্থ থেকে প্রশ্ন আসে … কমন পাওয়ার জন্য এইগুলোই যথেষ্ট .
    :
    1) অগ্নি ⇒ অনল, পাবক, আগুন, দহন, সর্বভূক, শিখা, হুতাশন, বহ্নি, বৈশ্বানর, কৃশানু, বিভাবসু, সর্বশুচি
    2) অন্ধকার ⇒ আঁধার, তমঃ, তমিস্রা, তিমির, আন্ধার, তমস্র, তম
    3) অখন্ড ⇒ সম্পূর্ণ, আস্ত, গোটা, অক্ষত, পূর্ণ, সমগ্র, সমাগ্রিক।
    4) অবকাশ ⇒ সময়, ফূসরত, অবসর, ছুটি, সুযোগ, বিরাম।
    5) অক্লান্ত ⇒ ক্লান্তিহীন, শ্রান্তিহীন, অনলস, নিরলস, অদম্য, উদ্যমী, পরিশ্রমী, অশ্রান্ত।
    6) অপূর্ব ⇒ অদ্ভুত, আশ্চর্য, অলৌকিক, অপরূপ, অভিনব, বিস্ময়কর, আজব, তাজ্জব, চমকপ্রদ, অবাক করা, মনোরম, সুন্দর।
    7) অক্ষয় ⇒ চিরন্তন, ক্ষয়হীন, নাশহীন, অশেষ, অনন্ত, অব্যয়, অবিনাশী, অলয়, অনশ্বর, লয়হীন, অমর, স্থায়ী।
    8) অঙ্গ ⇒ দেহ, শরীর, অবয়ব, গা, গাত্র, বপু, তনু, গতর, কাঠামো, আকৃতি, দেহাংশ।
    9) অবস্থা ⇒ দশা, রকম, প্রকার, গতিক, হাল, স্তিতি, অবস্থান, পরিবেশ, ঘটনা, ব্যাপার, প্রসঙ্গ, হালচাল, স্টাটাস।
    10) আইন ⇒ বিধান, কানুন, বিহিতক, অধিনিয়ম, বিধি, অনুবিধি, উপবিধি, ধারা, বিল, নিয়ম, নিয়মাবলি, বিধিব্যবস্থা।
    11) আসল ⇒ খাঁটি, মূলধন, মৌলিক, মূল, প্রকৃত, যথার্থ।
    12) আনন্দ ⇒ হর্ষ, হরষ, পুলক, সুখ, স্ফূতর্ত, সন্তোষ, পরিতোষ, প্রসন্নতা, আমোদ, প্রমোদ, হাসি, উল্লাস, মজা, তুষ্টি, খুশি, হাসিখুশি।
    13) আদি ⇒ প্রথম, আরম্ভ, অগ্র, পূর্ব, প্রাচীন, মূল।
    14) অতনু ⇒ মদন, অনঙ্গ, কাম, কন্দর্প
    15) আকাশ ⇒ আসমান, অম্বর, গগন, নভোঃ, নভোমণ্ডল, খগ, ব্যোম, অন্তরীক্ষ
    16) আলোক ⇒ আলো, জ্যোতি, কিরণ, দীপ্তি, প্রভা
    17) ইচ্ছা ⇒ আকাঙ্ক্ষা, অভিলাষ, অভিরুচি, অভিপ্রায়, আগ্রহ, স্পৃহা, কামনা, বাসনা, বাঞ্চা, ঈপ্সা, ঈহা
    19) উঁচু ⇒ উচ্চ, তুঙ্গ, সমুন্নত, আকাশ-ছোঁয়া, গগনচূম্বী, অভ্রভেদী, অত্যুচ্চ, সুউচ্চ।
    20) উদাহরণ ⇒ দৃষ্টান্ত, নিদর্শন, নজির, নমুনা, উল্লেখ, অতিষ্ঠা।
    21) উত্তম ⇒ প্রকৃষ্ট, শ্রেষ্ঠ, সেরা, ভালো, অগ্রণী, অতুল।
    22) উত্তর ⇒ জবাব, প্রতিবাক্য, মীমাংশা, সাড়া, সিদ্ধান্ত।
    23) একতা ⇒ ঐক্য, মিলন, একত্ব, অভেদ, সংহতি, ঐক্যবদ্ধ, একাত্মতা, একীভাব।
    24) কপাল ⇒ ললাট, ভাল, ভাগ্য, অদৃষ্ট, নিয়তি, অলিক
    25) কোকিল ⇒ পরভৃত, পিক, বসন্তদূত
    26) কষ্ট ⇒ মেহনত, যন্ত্রনা, ক্লেশ, আয়াস, পরিশ্রম, দু:খ।
    27) কুল ⇒ বংশ, গোত্র, জাতি, বর্ণ, গণ, সমূহ, অনেক, যূথ, জাত, শ্রেণী, ইত্যাদি।
    28) খ্যাতি ⇒ যশ, প্রসিদ্ধি, সুখ্যাতি, সুনাম, নাম, সুবাদ, প্রখ্যাতি, সুযশ, বিখ্যাতি, নামযশ, নামডাক, প্রখ্যা, প্রচার, হাতযশ, প্রতিপত্তি, প্রতিষ্ঠা।
    29) কন্যা ⇒ মেয়ে, দুহিতা, দুলালী, আত্মজা, নন্দিনী, পুত্রী, সূতা, তনয়া
    30) গরু ⇒ গো, গাভী, ধেনু
    31) ঘোড়া ⇒ অশ্ব, ঘোটক, তুরগ, বাজি, হয়, তুরঙ্গ, তুরঙ্গম
    32) মেঘ ⇒ ঘন, অভ্র, নিবিড়, জলধর, গাঢ়, জমাট, গভীর।
    33) চাঁদ ⇒ সুধাকর, শশী, শশধর, দ্বিজরাজ, বিধু, সোম, নিশাপতি, সুধানিধি, রাকেশ, সুধাময়, ইন্দু, তারানাথ।
    34) চতুর ⇒ বুদ্ধিমান, নিপুণ, কুশল, ধূর্ত, ঠগ, চালাক, সপ্রতিভ।
    35) ঘর ⇒ গৃহ, আলয়, নিবাস, আবাস, আশ্রয়, নিলয়, নিকেতন, ভবন, সদন, বাড়ি, বাটী, বাসস্থান
    36) চক্ষু ⇒ চোখ, আঁখি, অক্ষি, লোচন, নেত্র, নয়ন, দর্শনেন্দ্রিয়
    37) চন্দ্র ⇒ চাঁদ, চন্দ্রমা, শশী, শশধর, শশাঙ্ক, শুধাংশু, হিমাংশু, সুধাকর, সুধাংশু, হিমাংশু, সোম, বিধু, ইন্দু, নিশাকর, নিশাকান্ত, মৃগাঙ্ক, রজনীকান্ত
    38) চুল ⇒ চিকুর, কুন্তল, কেশ, অলক,“
    39) জননী ⇒ মা, মাতা, প্রসূতি, গর্ভধারিণী, জন্মদাত্রী,“
    40) দিন ⇒ দিবা, দিবস, দিনমান
    41) দেবতা ⇒ অমর, দেব, সুর, ত্রিদশ, অমর, অজর, ঠাকুর
    42) দ্বন্দ্ব ⇒ বিরোধ, ঝগড়া, কলহ, বিবাদ, যুদ্ধ
    43) তীর ⇒ কূল, তট, পাড়, সৈকত, পুলিন, ধার, কিনারা
    44) নারী ⇒ রমণী, কামিনী, মহিলা, স্ত্রী, অবলা, স্ত্রীলোক, অঙ্গনা, ভাসিনী, ললনা, কান্তা, পত্নী, সীমন্তনী
    45) নদী ⇒ তটিনী, তরঙ্গিনী, প্রবাহিনী, শৈবালিনী, স্রোতস্বতী, স্রোতস্বিনী, গাঙ, স্বরিৎ, নির্ঝরিনী, কল্লোলিনী
    46) নৌকা ⇒ নাও, তরণী, জলযান, তরী
    47) পণ্ডিত ⇒ বিদ্বান, জ্ঞানী, বিজ্ঞ, অভিজ্ঞ
    48) পদ্ম ⇒ কমল, উৎপল, সরোজ, পঙ্কজ, নলিন, শতদল, রাজীব, কোকনদ, কুবলয়, পুণ্ডরীক, অরবিন্দ, ইন্দীবর, পুষ্কর, তামরস, মৃণাল, সরসিজ, কুমুদ
    49) পৃথিবী ⇒ ধরা, ধরিত্রী, ধরণী, অবনী, মেদিনী, পৃ, পৃথ্বী, ভূ, বসুধা, বসুন্ধরা, জাহান, জগৎ, দুনিয়া, ভূবন, বিশ্ব, ভূ-মণ্ডল
    50) পর্বত ⇒ শৈল, গিরি, পাহাড়, অচল, অটল, অদ্রি, চূড়া, ভূধর, নগ, শৃঙ্গী, শৃঙ্গধর, মহীধর, মহীন্দ্র
    51) পানি ⇒ জল, বারি, সলিল, উদক, অম্বু, নীর, পয়ঃ, তোয়, অপ, জীবন, পানীয়
    52) পুত্র ⇒ তনয়, সুত, আত্মজ, ছেলে, নন্দন
    53) পত্নী ⇒ জায়া, ভার্যা, ভামিনী, স্ত্রী, অর্ধাঙ্গী, সহধর্মিণী, জীবন সাথী, বউ, দারা, বনিতা, কলত্র, গৃহিণী, গিন্নী
    54) পাখি ⇒ পক্ষী, খেচর, বিহগ, বিহঙ্গ, বিহঙ্গম, পতত্রী, খগ, অণ্ডজ, শকুন্ত, দ্বিজ
    55) ফুল ⇒ পুষ্প, কুসুম, প্রসূন, রঙ্গন
    56) বৃক্ষ ⇒ গাছ, শাখী, বিটপী, অটবি, দ্রুম, মহীরূহ, তরু, পাদপ
    57) বন ⇒ অরণ্য, জঙ্গল, কানন, বিপিণ, কুঞ্জ, কান্তার, অটবি, বনানী, গহন
    58) বায়ু ⇒ বাতাস, অনিল, পবন, হাওয়া, সমীর, সমীরণ, মারুত, গন্ধবহ
    59) বিদ্যুত ⇒ বিজলী, ত্বড়িৎ, ক্ষণপ্রভা, সৌদামিনী, চপলা, চঞ্চলা, দামিনী, অচিরপ্রভা, শম্পা
    60) মানুষ ⇒ মানব, মনুষ্য, লোক, জন, নৃ, নর,“
    61) মাটি ⇒ ক্ষিতি, মৃত্তিকা,“
    62) দখল ⇒ অধিকার, আয়ত্ত, জ্ঞান, কতৃত্ব, অধীনতা, পটুতা।
    63) নারী ⇒ রমণী, রামা, বামা, অবলা, মহিলা, স্ত্রী, মেয়ে, মেয়েমানুষ, ললনা, মানবী, মানবিকা, কামিনী, আওরত, জেনানা, যোষা, জনি, বালা, বনিতা, ভামিনী, শর্বরী।
    64) বাতাস ⇒ বায়ু, পবন, সমীর, অনিল, মারুত, বাত, বায়, আশুগ, পবমান, সদাগতি, শব্দবহ, অগ্নিশখ, বহ্নিসখ, হাওয়া।
    65) মৃত্যু ⇒ মরা, ইন্তেকাল, বিনাশ, মরণ, নাশ, নিধন, নিপাত, প্রয়ান, লোকান্তরপ্রাপ্তি, চিরবিদায়, প্রাণত্যাগ, জীবননাশ, দেহান্ত, লোকান্তর, , মারা যাওয়া, পটল তোলা, মহাপ্রয়াণ।
    66) সমুদ্র ⇒ সাগর, সায়ব, অর্ণব, সিন্ধু, দরিয়া, জলধি, পাথার, পারাবার, প্রচেতা, অকূল, জলধর, নদীকান্ত, নীরধি, তোয়াধি, পয়োধি, বারিধর, বারীন্দ্র, ইরাবান, দ্বীপী।
    67) স্বর্ণ ⇒ সোনা, কাঞ্চন, কনক, হেম, হিরণ্য, মহাধাতু, গোল্ড।
    68) সম ⇒ সমান, তুল্য, সদৃশ, যুদ্ন, অনুরূপ।
    69) দিন ⇒ দিবস, দিবা, অহ, বার, রোজ, বাসর, দিনরাত্রি, দিনরজনী, সাবন, অষ্টপ্রহর, আটপ্রহর।
    70) নিদ্রা ⇒ ঘুম, তন্দ্রা, নিদ, সুপ্তি, গাঢ়ঘুম, নিষুপ্তি।
    71) ছাত্র ⇒ শিষ্য, শিক্ষানবিশ, পড়ুয়া।
    72) জটিল ⇒ জড়ানো, কঠিন, শক্ত, খটমট, জটাযুক্ত।
    73) ধরা ⇒ পৃথিবী, ধারণ করা, হাত দেয়া, ছোঁয়া, স্পশর্, ধরণি, ধরিত্রী, পাকড়ানো।
    74) কবুতর ⇒ পারাবত, কপোত, পায়রা, নোটন, লোটন, প্রাসাদকুক্কুট।
    75) দক্ষ ⇒ নিপুণ, পটু, পারদশী, কর্মঠ, সুনিপুন, কামিল।
    76) রাত্রি ⇒ রাত, রাত্তির, নিশি, নিশীথ, রাত, রজনী, যামিনী, যামী, যামিকা, শমনী, বিভাবরী, ক্ষণদা, নক্ত, তামসী, অসুরা।
    77) মেঘ ⇒ জলধর, জীমৃত, বারিদ, নীরদ, পয়োদ, ঘন, অম্বুদ, তায়দ, পয়োধর, বলাহক, তোয়ধর
    78) রাজা ⇒ নরপতি, নৃপতি, ভূপতি, বাদশাহ
    79) রাত ⇒ রাত্রি, রজনী, নিশি, যামিনী, শর্বরী, বিভাবরী, নিশা, নিশিথিনী, ক্ষণদা, ত্রিযামা
    80) শরীর ⇒ দেহ, বিগ্রহ, কায়, কলেবর, গা, গাত্র, তনু, অঙ্গ, অবয়ব
    81) সর্প ⇒ সাপ, অহি, আশীবিষ, উরহ, নাগ, নাগিনী, ভুজঙ্গ, ভুজগ, ভুজঙ্গম, সরীসৃপ, ফণী, ফণাধর, বিষধর, বায়ুভুক
    82) স্ত্রী ⇒ পত্নী, জায়া, সহধর্মিণী, ভার্যা, বেগম, বিবি, বধূ,“
    83) স্বর্ণ ⇒ সোনা, কনক, কাঞ্চন, সুবর্ণ, হেম, হিরণ্য, হিরণ
    84) স্বর্গ ⇒ দেবলোক, দ্যুলোক, বেহেশত, সুরলোক, দ্যু, ত্রিদশালয়, ইন্দ্রালয়, দিব্যলোক, জান্নাত
    85) সাহসী ⇒ অভীক, নির্ভীক,“
    86) সাগর ⇒ সমুদ্র, সিন্ধু, অর্ণব, জলধি, জলনিধি, বারিধি, পারাবার, রত্নাকর, বরুণ, দরিয়া, পারাবার, বারীন্দ্র, পাথার, বারীশ, পয়োনিধি, তোয়ধি, বারিনিধি, অম্বুধি
    87) সূর্য ⇒ রবি, সবিতা, দিবাকর, দিনমনি, দিননাথ, দিবাবসু, অর্ক, ভানু, তপন, আদিত্য, ভাস্কর, মার্তণ্ড, অংশু, প্রভাকর, কিরণমালী, অরুণ, মিহির, পুষা, সূর, মিত্র, দিনপতি, বালকি, অর্ষমা
    88) হাত ⇒ কর, বাহু, ভুজ, হস্ত, পাণি
    89) হস্তী ⇒ হাতি, করী, দন্তী, মাতঙ্গ, গজ, ঐরাবত, দ্বিপ, দ্বিরদ, বারণ, কুঞ্জর, নাগ
    90) লাল ⇒ লোহিত, রক্তবর্ণ
    91) ঢেউ ⇒ তরঙ্গ, ঊর্মি, লহরী, বীচি, মওজ
    বাগধারা:
    ১) “লম্বাদেয়া“ বাগধারাটির অর্থ
    উ: পালানো
    ২) “সাপের পাঁচ পা দেখা“ প্রবাদের অর্থ
    উ: অহংকারে অসম্ভবকে সম্ভব মনে করা।
    ৩) “ছক্কা পাঞ্জা“ করা মানে
    উ: বড়াই করা
    ৪) জঙ্গম এর বিপরীত শব্দ
    উ: স্থাবর
    ৫) “কুজন“ শব্দের অর্থ
    উ: পাখির ডাক
    ৬) “যে নারীর হাসি পবিত্র“ এক কথায় কি বলে?
    উ: সুচিস্মিতা
    ৭) Learn the poem by heart- এর সঠিক অর্থ
    উ: কবিতাটি মুখস্ত কর।
    ৮) Make good.এর সঠিক অনুবাদ
    উ: ক্ষতিপূরণ
    ৯) কোন যতিচিহ্নের বিরতিকাল পরিমাণ এক সেকেন্ড?
    উ: সেমিকোলন
    ১০) “রোনাল্ড“ একজন জনপ্রিয় খেলোয়াড়। এখানে “খেলোয়াড়“ কোন কারক?
    উ: কর্মকারক।
    ১১) “বসিরকে যেতে হবে“ বসিরকে কোন কারকে কোন বিভক্তি?
    উ: কর্তৃকারকে দ্বিতীয়া
    ১২) সমস্তপদকে ভেঙে যে বাক্যাংশ করা হয় তার নাম কি?
    উ: ব্যাসবাক্য বা বিগ্রহ বাক্য
    ১৩) প্রত্যেক পদের অর্থ প্রাধান্য পায় কোন সমাসে?
    উ: দ্বন্দ্ব সমাসে
    ১৪) “যা বলা যোগ্য নয়“ এক কথায় কি বলে
    উ: অব্যক্ত
    ১৫) “ঠোঁট কাটা“ বলতে কি বুঝায়?
    উ: স্পষ্টভাষী
    ১৬) বাগাড়ম্বর “ শব্দের সন্ধি বিচ্ছেদ কোনটি?
    উ: বাক্ +আড়ম্বর
    ১৭) সন্ধি সাধিত শব্দ “পরস্পর“ কোন ধরনের সন্ধির দৃষ্টান্ত?
    উ: নিপাতনে সিদ্ধ
    ১৮) Nero fiddles while Rome burns.এর অর্থ
    উ: কারো পৌষ মাস, কারো সর্বনাশ।
    ১৯) একটি অপূর্ণ বাক্যের পর অন্য একটি বাক্যের অবতারনা বোঝাতে কি চিহ্ন বসে?
    উ: কোলন
    ২০) Industry is the root of এর অর্থ
    উ: পরিশ্রম সৌভাগ্যের মূল
    ২১) Look before you leap. এর অর্থ
    উ: ভাবিয়া করিও কাজ
    ২২) বাক্যে কমা অপেক্ষা বেশি বিরতির প্রয়োজন হলে কি বসে?
    উ: সেমিকোলন
    ২৩) কোন যতিচিহ্নের জন্য সবচেয়ে বেশী সময় থামতে হয়?
    উ: দাঁড়ি
    * মৌলিক স্বরধ্বনি কতটি?– ৭ টি
    * যৌগিক স্বরধ্বনি কতটি?– ২ টি
    * মৌলিক স্বরধ্বনিগুলো কি কি?– অ, আ, ই, উ, এ,অ্যা, ও
    * যৌগিক স্বরধ্বনিগুলো কি কি?– ঔ, ঐ
    * কণ্ঠ বর্ণ কোনগুলি?– ক, খ, গ, ঘ, ঙ
    * তালব্য বর্ণ কোনগুলি?– চ, ছ, জ, ঝ, ঞ
    * মূর্ধণ বর্ণ কোনগুলি?– ট, ঠ, ড, ঢ, ণ
    * দন্ত বর্ণ কোনগুলি?– ত, থ, দ, ধ, ন
    * ওষ্ঠ বর্ণ কোনগুলি?– প, ফ, ব, ভ, ম
    * ঙ, ঞ, ণ, ন, ম — নাসিক্য বর্ণ
    * নাসিক্য বর্ণের অপর নাম কি?– অনুনাসিক বা
    সানুনাসিক বর্ণ
    * অন্তঃস্থ বর্ণ কোনগুলি?– য, র, ল
    * শ, ষ, স — শিশধ্বনি
    * ড়, ঢ় — তাড়নজাত ধ্বনি
    * খন্ডব্যঞ্জন কোনটি?– ৎ
    * অঘোষ হ ধ্বনির বর্ণরুপ কোনটি?– ঃ
    * পরাশ্রিত বর্ণ কোনগুলি?– ৎ, ং, ঃ
    * পূর্ণমাত্রার বর্ণ– ৩২টি
    * অর্ধমাত্রার বর্ণ– ৮টি
    * মাত্রাহীন বর্ণ– ১০টি
    * কোনটি নিলীন বর্ণ?– অ
    এক কথায় প্রকাশ
    ※ যে নারী প্রিয় কথা বলে = প্রিয়ংবদা।
    ※ যে নারী প্রিয় বাক্য বলে = প্রিয়ভাষী।
    ※ যে নারী নিজে বর বরণ করে নেয় = স্বয়ংবরা।
    ※ যে নারী (মেয়ের) বিয়ে হয়নি = কুমারী।
    ※ যে নারীর বিয়ে হয় না = অনূঢ়া।
    ※ যে নারীর সম্প্রতি বিয়ে হয়েছে = নবোঢ়া।
    ※ যে নারীর কোন সন্তান হয় না = বন্ধ্যা।
    ※ যে নারী জীবনে একমাত্র সন্তান প্রসব করেছে
    = কাকবন্ধ্যা।
    ※ যে নারীর সন্তান বাঁচে না = মৃতবৎসা।
    ※ যে নারীর স্বামী ও পুত্র মৃত = অবীরা। ※ যে নারীর স্বামী ও পুত্র জীবিত = বীরা বা পুরন্ধ্রী।
    ※ যে নারী বীর সন্তান প্রসব করে = বীরপ্রসূ।
    ※ যে নারী বীর = বীরাঙ্গনা।
    ※ যে নারী পূর্বে অন্যের স্ত্রী ছিল = অন্য পূর্বা।
    ※ যে নারী অন্য কারও প্রতি আসক্ত হয়না = অনন্যা।
    ※ যে নারী কখনো সূর্যকে দেখে নাই = অসূর্যম্পশ্যা।
    ※ নারীর অসূয়া (হিংসা) নেই = অনসূয়া।
    ※ যে নারীর হাসি সুন্দর = সুস্মিতা।
    ※ যে নারীর হাসি কুটিলতাবর্জিত = শুচিস্মিতা।
    ※ যে নারীর স্বামী বিদেশে থাকে = প্রোষিতভর্তৃকা।
    ★ যা গতিশীল=জঙ্গম
    ★কর দেয় যে=করদ
    ★পা ধুইবার জল=পাদ্য
    ★মাসের শেষ দিন=সংক্রান্তি
    ★নিজেকে বড় ভাবে যে=হামবড়া
    ★ক্লান্তি নাই যার=অক্লান্ত
    ★খেয়া পার করে যে=পাটনী
    ★আদি নাই যার=অনাদি
    ★একই সময়ে=যুগপত
    ★যে নারী বীর=বীরাঙ্গনা
    ★যে পুরুষ বিয়ে করেছে=কৃতদার
    ★গভীর রাত্রি=নিশীথ
    ★সর্বত্র গমন করে যে=সর্বগ
    ★যা বলা হয়েছে=উক্ত
    ★ফুল হইতে তৈরি=ফুলেল
    ★বাতাসে চরে যে=কপোত
    ★রন্ধনের যোগ্য=পাচ্য
    প্রবাদ
    1. চোর পালালে বুদ্ধি বাড়ে।
    = After death comes the doctor.
    – 2. অসময়ের বন্ধুই প্রকৃত বন্ধু।
    = A friend in need is a friend indeed.
    – 3. ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়।
    = Where there is will,there is a way.
    – 4. আয় বুঝে ব্যয় কর।
    = Cut your coat according to your cloth.
    – 5. যত গর্জে তত বর্ষে না।
    = Barking dog seldom bites.
    – 6. যেমন কর্ম তেমন ফল।
    = As you sow,so you reap.
    – 7. বাপকা বেটা;সিপাইকা ঘোড়া।
    = Like father like son.
    – 8. অতি লোভে তাতি নষ্ট।
    = Grasp all,lose all.
    – 9. এক হাতে তালি বাজে না।
    = It takes two to make a quarrel.
    – 10. পরিশ্রমই সৌভাগ্যের চাবিকাঠি।
    = Industry is the key to success.
    – 11. গাইতে গাইতে গায়েন।
    = Practice makes a man perfect.
    – 12. নাই মামার চেয়ে কানা মামা ভাল।
    = Something is better than nothing.
    khaled uz zaman sonju

বিসিএস প্রস্তুতি – সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ৩৭ তম বিসিএস – মো. মাসুদুর রহমান

প্রথমত একটা কথা বলতে চাই – “সাকসেস হ্যাস নো শর্টকাট”, কেউ একজন ১ সপ্তাহ পড়ে প্রিলি পাশ করে গিয়েছেন এরকম গল্প অনেকের মুখে শুনলেও বাস্তবে সেই লোকটির সাক্ষাত খুব কমই পাওয়া যাবে। তবে হ্যাঁ, শর্ট প্রিপারেশন নিয়েও যে কারো কারো হয়নি তা কিন্তু না, কেননা প্রিলিটা যতখানি না প্রিপারেশনের তার থেকেও কিছুটা বেশী আমি বলব যে ভাগ্যের প্রসন্নতা। যাই হোক কাজের কথায় চলে আসি। নিজের অভিজ্ঞতার আলোকে যে প্রিপারেশনগুলো আপনাদেরকে নিতে উৎসাহিত করবঃ

১। কোশ্চেন ব্যাংক সলভ করাঃ

এটা অবশ্যই করতে হবে, শুধু এন্সার না, ব্যাখ্যাসহ সবগুলো উত্তর ভালোকরে পড়তে হবে। এক্ষেত্রে আমি ২টি বই ফলো করেছিলাম – অ্যাসিওরেন্স এবং প্রফেসর’স (২ বছরে ২ টা কিনেছিলাম)। সলভ করা প্রশ্নগুলো প্র্যাকটিস করবার জন্য আমি প্লে স্টোর থেকে বিসিএস এর কিছু এপ্লিকেশন নামিয়ে রেখেছিলাম, অবসর সময়গুলোতে সেই এপগুলোতে এক্সাম দিতাম। যে উত্তরগুলো ভুল হত সেগুলো বাসায় গিয়ে বই থেকে আবার ব্যাখ্যাসহ দেখে নিতাম।

২। বিষয়ভিত্তিক প্রস্তুতিঃ

২-১। বাংলাঃ 
ক। ড. সৌমিত্র শেখরের “বাংলা প্রশ্নের টীকা-ভাষ্য” নামে একটা বই ছিল, ১২০০ এর উপরে টিকা ছিল তখন ব্যাখ্যাসহ, যেটা শেষ করতে আমার সময় কম লেগেছিল এবং শেষ করার পরে কিছুটা আত্মবিশ্বাস পাচ্ছিলাম নিজের মধ্যে। একটা কথা বলে রাখি এখানে, বই এর সাইজ যত ছোটই হোকনা কেন, পুরো বই শেষ করতে পারার মধ্যে এক ধরনের সাইকোলজিক্যাল পজেটিভিটি কাজ করে, যেটা আমাকে অন্য আর একটা বই শেষ করার ব্যাপারে অনুপ্রেরণা দিত।

খ। সিলেবাস অনুযায়ী “৯ম-১০ম শ্রেণীর বাংলা বোর্ড ব্যাকরণ” বইটি পড়েছি, এখানকার সব টপিক পড়তে হবে না, শুধু যে টপিকগুলো থেকে আগের বছরগুলোতে প্রশ্ন হয়েছে সেটা দেখলেই হবে।

গ। মহসিনা নাজিলার “শীকর বাংলা ভাষা এবং সাহিত্য” বইটা এখন ভালো করেছে, সৌমিত্র শেখরের টিকা ভাষ্য-এর থেকে এটি কলেবরে বড়, তবে অনেক তথ্যবহুল এবং সহজে পাঠ উপযোগী একটি বই।

২-২। ইংরেজীঃ
ক। “English for Competitive Exam” এটার থেকে ভাল বই পাওয়া কষ্টকর ছিল, কিন্তু বইটা অনেক বড়, শেষ করবার মত সুযোগ হয়ে উঠেনি, তবে এর থেকে বেছে বেছে অনেকগুলো টপিকস পড়েছি, যেগুলো বেশ উপকারে দিয়েছে।

খ। “A Handbook on English Literature” এবং “An Easy Approach to English Literature For BCS Preliminary” বইদুটো ইতিহাস পার্টের জন্য খুবই ভাল কাজে দিয়েছে, তবে কেনার আগে অবশ্যই দেখে নিতে হবে আপেডেটেড প্রশ্নগুলোর ব্যাখ্যাসহ উত্তর দেয়া আছে কিনা।

২-৩। দৈনন্দিন বিজ্ঞানঃ 
মূলত “MP3 দৈনন্দিন বিজ্ঞান” বইটাই পড়েছি তবে ইউটিউবের বিজ্ঞানের বেশকিছু ভিডিও আছে যেগুলো হেল্পফুল ছিল, পড়তে পড়তে যখন বিরক্ত লাগত একটা দু’টা গান শোনা/দেখার পর এই ভিডিওগুলো দেখতাম, বিশ্রামও হতো আবার পড়াও হয়ে যেত, তবে হ্যাঁ তথ্যের ভুলের ব্যাপারে একটু সতর্ক থাকতে হবে এক্ষত্রে।

২-৪। কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তিঃ 
বিএসসি টা সিএসই-তে হওয়াতে এটা আমার জন্য কিছুটা সহজ ছিল, তবে এক্ষেত্রে MP3 এর কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি বইটা পড়েছি।

২-৫। মানসিক দক্ষতাঃ প্রিলি এবং রিটেনের জন্য একবারে কাজে দেয় এই বইগুলো, আমি অ্যাসিওরেন্স মানসিক দক্ষতা বইটা পড়েছি, তবে এক্ষেত্রে যারা আগে ডিফেন্সের আই.এস.এস.বি-এর প্রথম দিনটা পার করেছেন, তারা খুব সহজেই আগের প্রিপারেশন দিয়ে অনেকটা এগিয়ে থাকতে পারবেন, তা নাহলেও খুব একটা সমস্যা হবে না, এই বিষয়টা তুলনামূলক সহজ এবং একটু মাথা খাটিয়ে পড়লে ভাল নম্বর পাওয়া সম্ভব।

২-৬। ম্যাথঃ 
ক। “MP3 Math Review” বইটা পড়েছি

খ। নীলক্ষেতে কিছু ম্যাথ শর্টকাটের বই খুঁজে পেয়েছিলাম, যেটা তাড়াতাড়ি উত্তর খুঁজে পেতে হেল্প করেছে অনেকটা, এমুহুর্তে নামগুলো ঠিক মনে পড়ছেনা।

গ। রবি ১০ মিনিট স্কুলস এর ম্যাথ টিপিস ভিডিওগুলো অবসরে অবশ্যই দেখবেন, এগুলো বেশ কাজে দিয়েছিল আমার।

বলে রাখা ভাল, যারা ম্যাথে দুর্বল, শেষ সময়ের প্রস্তুতিতে কখনই আগে ম্যাথে হাত দিয়ে নিজেকে হতাশ করবেন না (১৫-তে ২-৩ কিছু না পড়ে পাশের জনার কাছ থেকে শুনেও পাওয়া যায় – যদি কপাল ভাল থাকে এতেও চলবে)।

২-৭। বাংলাদেশঃ 
ক। MP3 বাংলাদেশ বইটা পড়েছিলাম

খ। ডেইলি একটা নিউজ পেপারের বাংলাদেশ, আন্তর্জাতিক এই দুটো সেকশন পড়তে পারলে সেটা আপনাকে প্রিলি, রিটেন এবং ভাইভা সব ক্ষেত্রে উপকার দেব।

২-৮। আন্তর্জাতিকঃ
ক। MP3 আন্তর্জাতিক বইটা পড়েছিলাম

খ। সাইন্সের স্টুডেন্টদের কাছে এই দিকটা সব সময়ই বিপদের, এজন্য বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক এই দুটোর জন্য আর একটা কাজ করতাম আমি, মডেল টেস্টের তিনটা বই ছিল আমার, সেই বইগুলোর এই সেকশনের প্রশ্নগুলো বারবার দেখতাম।

২-৯। ভূগোলঃ অ্যাসিওরেন্স

২-১০। নৈতিকতাঃ অ্যাসিওরেন্স

৩। নিজেকে যাচাই করাঃ

ক। ৩৭ এর প্রস্তুতির শুরু থেকেই আমি চেষ্টা করতাম সপ্তাহে ৩/৪ টা মডেল টেস্ট দিয়ে নিজের প্রস্তুতিটা যাচাই করার, এক্ষেত্রে আমি শুধু সঠিক দাগানোর প্র‍্যাকটিস করতাম, শুরুতে যেটা ২৫-৩০ দিয়ে শুরু হয়েছিল সেটা শেষ পর্যন্ত ১৪০-১৫০ সঠিক দাগানোতে আনতে পেরেছিলাম।

খ। প্রিলির একমাস আগে থেকে ডেইলি ৩০-৪০মিনিটে একটা করে মডেল টেস্ট দিতাম। ৩টা বই ছিল – অ্যাসিওরেন্স, প্রফেসর’স, জ্ঞানদ্বিপ এর।

এছাড়াও, ডাইজেস্ট ছিল অ্যাসিওরেন্স এর তবে শেষ সময়ের প্রস্তুতিতে – “প্রফেসর’স এর বিশেষ সংখ্যাটা” শেষ করেছিলাম, খুবই হেল্পফুল ছিল বইটা।

আমার ব্যাপারে কিছু প্রশ্নের উত্তরঃ

১। এটা আমার তৃতীয় প্রিলি ছিল – ৩৫, ৩৬, ৩৭ (শুধুমাত্র এটাতেই পাশ করেছি)

২। প্রিলির জন্য কোন কোচিং করতে পারিনি, সুযোগ থাকলে হয়ত করতাম, তবে রিটেনের জন্য কোচিং করেছিলাম।

৩। ২০০৯ থেকে জব করছি, তাই জব ছেড়ে দিয়ে প্রিপারেশন নেবার মত ইচ্ছা থাকলেও, আর্থিক টানা পোড়ন দেখাদিলে সেটাতে মানসিকভাবে চাপে পড়ে যেতে পারি ভেবে আর সে পথে আগাইনি, তবে হ্যাঁ ৩৭ মাসের দীর্ঘ পথ চলার মাঝে মানসিক অবস্থার অনেক পরিবর্তন ঘটে থাকে, তাই জবের পাশাপাশি প্রিপারেশন নিতে পাড়লে সেটা সব থেকে উত্তম (যদি জবের পরিবেশটা ভাল হয় তবে)।

৪। যেভাবে পড়তামঃ

ক। ৯-৬ টা অফিসের পর বাসায় এসে (বাসা খুব কাছে ছিল অফিসের) ২ঘন্টা ঘুম দিয়ে রাত ৯টা থেকে ২টা পর্যন্ত চেষ্টা করতাম পড়ার। একদিন ২ ঘন্টা, অন্যদিন ৮ ঘন্টা এভাবে পড়াটা আমার পছন্দ ছিলনা, সবাইকে আমি এটাই বলি যেটাই করবেন একই ভাবে কন্টিনিউ করবেন (মিনিমাম ৩ থেকে ৪ মাস), তাহলে অবশ্যই সেটার পজেটিভ ইমপেক্ট আপনি দেখতে পাবেন ইনশাআল্লাহ।

খ। কালো কালির বই লাল বা নীল কালির কলম অথবা হাইলাইটার দিয়ে মার্ক করে রাখতাম

গ। একি টপিকস টানা না পড়ে, প্রতি সাবজেক্টের ম্যাক্সিমাম ১৫-২০ পেজ পর্যন্ত পড়তাম একটানা – উল্লেখ্য, মুখস্থ বিদ্যায় আমি খুব ভাল না হবার কারনে আমি মুখস্থ করবার জন্য ব্রেনের উপর চাপ না দিয়ে, যে বিষয়গুলো মনে রাখতে কষ্ট হতো সেগুলো ২/৩ দিন পরপরই রিডিং পড়ার মত করে দেখতাম, সব না, শুধুমাত্র হাইলাইট করা অংশগুলো।

ঘ। সাইন্স এবং সিএসই ব্যাকগ্রাউন্ডের হবার কারনে – বিজ্ঞান, আইসিটি, ম্যাথ, মানসিক দক্ষতা এগুলের মার্ক যতটা বাড়ানো যায় সে টার্গেট ছিল সবসময়, এখানে একটা ব্যাপার আছে, পুরানো প্রশ্নগুলো এক্সাটলি রিপিট না হলেও সেম প্যার্টানের প্রশ্ন অনেক আসে, এছাড়াও ঐ বছরের বিভিন্ন গভঃ পরীক্ষার প্রশ্নের সাথে প্রশ্নগুলোর অনেক মিল পাওয়া যায় (বিষয়টা কাকতালীয় না, আমার অভিজ্ঞতা থেকেই আমি এমন মিল খুজে পেয়েছি)।

ঙ। শেষ যে কাজটা আমি করতাম – ৩৫ এর পর কোন প্রিলিই আমি ঢাকাতে দিতাম না কেননা খুলনাতে আমাদের বাসা, খুলনার সুবিধাগুলো হল এখানে যানযট নেই, হলের পরিবেশ যথেষ্ট ফ্রেন্ডলি পেয়েছি, আর রিটেন বিগত ৪/৫ টা বিসিএস একই সেন্টারে হচ্ছে, যেটা আমার বাসা থেকে ১০ মিনিটের পথ মাত্র। যাদের এটলিস্ট যানজট এড়ানোর এই সুযোগটা আছে তারা এটা অবশ্যই নিতে পারেন।

পরিশেষে এটাই বলব, বিসিএস একটি স্বপ্নের নাম, এই চলার পথটা যেমন অনেক দীর্ঘ, তেমনি এই পথে প্রতিবন্ধকতাও রয়েছে অনেক, আপনার পথের প্রতিবন্ধকতাগুলোকে আপনার নিজের কৌশলেই অতিক্রম করতে হবে, অন্যের দেখানো পথটাই যে আপনাকে অনুসরন করে চলতে হবে ব্যাপারটা কখনই এমন নয়, বরং আমি মনে করি দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে শেষ গন্ত্যবে পৌঁছানো যাদের একমাত্র লক্ষ্য তারা নিজেরাই তাদের কৌশল ঠিক বের করে নিতে পারে।

মো. মাসুদুর রহমান
সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট
৩৭ তম বিসিএস